সাম্প্রতিক রাজনীতি গণতন্ত্র ও গঠনতন্ত্র আদালত, বিচার ও ইনসাফ শাপলা ও শাহবাগ সাম্প্রদায়িকতা, জাতীয়তাবাদ ও রাষ্ট্র মানবাধিকার ও গণতন্ত্র সৈনিকতা ও গণপ্রতিরক্ষা ভারত ও আঞ্চলিক রাজনীতি আন্তর্জাতিক রাজনীতি অর্থনৈতিক গোলকায়ন ও বিশ্বব্যবস্থা ফিলিস্তিন ও মধ্যপ্রাচ্য কৃষক ও কৃষি শ্রম ও কারখানা শিক্ষা: দর্শন, রাজনীতি ও অর্থনীতি বিজ্ঞান ও কৃৎকৌশল জীবাশ্ম জ্বালানির অর্থনীতি ও রাজনীতি স্বাস্থ্য ও পুষ্টি নারী প্রশ্ন সাহিত্যের সমাজতত্ত্ব ও রাজনীতি আবার ছাপা চিন্তা পুরানা সংখ্যা সাক্ষাৎকার

ফরহাদ মজহার


Tuesday 05 March 13

print

সরকার যে হত্যাযজ্ঞ শুরু করেছে সেখানে দেখা যাচ্ছে পরিকল্পিত ভাবে একটি বিশেষ গোষ্ঠিকে ‘নির্মূল’ করাই সরকারের উদ্দেশ্য। একে কেন গণহত্যা বলা হচ্ছে তাতে অনেকে আপত্তি করছেন। এই হত্যাযজ্ঞ যারা চালিয়ে যেতে চান তারাই এই প্রশ্ন তুলছেন। যদি রক্ত তারা ঝরাতে না চান তাহলে সকল পক্ষকে অবিলম্বে হানাহানি বন্ধ করবার জন্যই তারা ডাক দিতেন। কূটতর্ক করতেন না। কিন্তু তারা তা না করে এই হত্যাকাণ্ড গণহত্যা কিনা সেই কূটতর্কই শুরু করেছেন। আমি এর আগে বারবার বলেছি সরকার যেভাবে মানুষ হত্যা করছে সেটা গণহত্যাই। এই হত্যালিপ্সা নিবৃত্ত করা দরকার। পুলিশের প্রতিও দাবি জানাতে হবে যেন অবিলম্বে গুলি করে মানুষ হত্যা বন্ধ করে। জামাত-শিবিরকেও অবিলম্বে সকল প্রকার হামলা বন্ধ করে শান্তিপূর্ণ ভাবে বিক্ষোভ আন্দোলনের জন্য বাধ্য করতে হবে। আচরণের মধ্য দিয়েই সরকার – অর্থাৎ পুলিশকে বোঝাতে হবে তারা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে কোন বাধা দেবেন না। রক্ত ঝরুক এটা আমরা আর চাই না। এই পরিপ্রেক্ষিতে গণহত্যা কাকে বলে সে সম্পর্কে এখানে আলোচনা করব।

অনেকের ধারণা যে হিটলার যেভাবে ইহুদিদের গ্যাস চেম্বারে পুড়িয়ে মেরেছে হত্যার মাত্রা ও হত্যার ধরণ সেই পর্যায়ের না হলে তাকে ‘গণহত্যা’ বলা যাবে না। হিটলারের ইহুদি নিধন নিঃসন্দেহে একটি বর্বর ও ভয়ানক অপরাধ। এই নিধনযজ্ঞ এখন এমন একটা মিথে পরিণত হয়েছে যাতে অনেকের ধারণা একই মাত্রার বা একই ধরণের হত্যাকাণ্ড না হলে তাকে গণহত্যা বলা যাবে না। যেমন, গ্যাস চেম্বারে পুড়িয়ে না মারলে সেটা গণহত্যা নয়। কিম্বা হত্যার সংখ্যা কয়েক লক্ষ ছাড়িয়ে না গেলে তাকেও গণহত্যা বলা যাবে না। এই ধারণা ভুল। যারা ইহুদিবাদী (বা জায়নবাদী) রাষ্ট্রের পক্ষে তারা সবসময়ই এই তর্কটা করেন। তবে তাদের দিক থেকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যটা পরিষ্কারঃ ইসরাইল যেভাবে প্যালেস্টাইনীদের বিরুদ্ধে হত্যাযজ্ঞ চালায় তাকে যেন ‘গণহত্যা’ হিশাবে গণ্য করা না হয়। প্যালেস্টাইনের জনগণের বিরুদ্ধে যে হত্যাযজ্ঞ হচ্ছে তাকে ‘গণহত্যা’ হিশাবে স্বীকার না করার পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য পরিষ্কার।

 


অনেকের ধারণা যে হিটলার যেভাবে ইহুদিদের গ্যাস চেম্বারে পুড়িয়ে মেরেছে হত্যার মাত্রা ও হত্যার ধরণ সেই পর্যায়ের না হলে তাকে ‘গণহত্যা’ বলা যাবে না। হিটলারের ইহুদি নিধন নিঃসন্দেহে একটি বর্বর ও ভয়ানক অপরাধ। এই নিধনযজ্ঞ এখন এমন একটা মিথে পরিণত হয়েছে যাতে অনেকের ধারণা একই মাত্রার বা একই ধরণের হত্যাকাণ্ড না হলে তাকে গণহত্যা বলা যাবে না। যেমন, গ্যাস চেম্বারে পুড়িয়ে না মারলে সেটা গণহত্যা নয়। কিম্বা হত্যার সংখ্যা কয়েক লক্ষ ছাড়িয়ে না গেলে তাকেও গণহত্যা বলা যাবে না। এই ধারণা ভুল।

 

 


কিন্তু তা সত্ত্বেও একাত্তর সালে পাকিস্তানীরা বাঙালিদের যেভাবে নির্বিচারে গুলি করে বা ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা করেছে তাকে ‘গণহত্যা’-ই বলা হয়েছে। হিটলারের গ্যাসচেম্বারে কাউকে পুড়ে মরতে হয় নি। যে সংখ্যা বাংলাদেশ দাবি করেছিল সেই সংখ্যা নিয়েও বিশেষ কোন তর্ক ওঠে নি। আমরা বিশ্বাস করি একাত্তরে তিরিশ লাখ মানুষ দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন। সম্প্রতি এই সংখ্যা নিয়ে তর্ক উঠেছে, তর্ক তুলেছেন গবেষকরা। আসলে কে কোথায় কিভাবে মারা গিয়েছেন তার কোন প্রামাণ্য তথ্য আমাদের নাই। এই সংখ্যা যাচাই বাছাইয়ের একটা চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু সেটা আর হয় নি। সংখ্যার গরমিল অনেক বড় হওয়ায় এই দরকারী কাজটি আর সম্পন্ন হয়নি।

 

যারা ইহুদিবাদ ও ইহুদি রাষ্ট্রের পক্ষে তাদের কাছে মৃতের সংখ্যা ও হত্যার ধরণ খুব সংবেদনশীল ব্যাপার। একই সঙ্গে ইহুদিবাদী বা জায়নিস্ট রাজনীতির জন্যও বটে। তেমনি আমাদের জন্যও। একই ভাবে বাঙালি জাতীয়তাবাদী রাজনীতির জন্য একাত্তরে কতোজন মানুষ নিহত হয়েছেন সেই সংখ্যা খুবই সংবেদনশীল বিষয়।

আমাদের আলোচনা কতো মানুষ মরলে আর কিভাবে মারলে সেটা ‘গণহত্যা’ হয় আর কিভাবে হয় না, সেই তর্ক নয়। সুনির্দিষ্ট ভাবে আমরা বোঝার চেষ্টা করব ‘গণহত্যা’-র সংজ্ঞার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক অভিমত কি? গণহত্যার ক্ষেত্রে সংখ্যার বিতর্ক নাই। তো সংখ্যার তর্ক বাদ দিয়ে আমরা ‘গণহত্যা’ ব্যাপারটা কি সেটা বুঝে নিতে চাই। কিভাবে হত্যা করলে সেটা ‘গণহত্যা’ হয় সেটা আমাদের বুঝতে হবে।

নাৎসিরা যেভাবে ইহুদিদের হত্যা করেছিল সেই অপরাধের বিশেষ ধরণকে বোঝাতে র‍্যফায়েল লেমকিন (১৯০০ – ১৯৫৯) ‘জেনোসাইড’ কথাটি ব্যবহার করেন। এর একটা আইনী সংজ্ঞা পরে তৈরী হয়। সে প্রশ্নে পরে আসছি। তবে একেই আমরা বাংলায় গণহত্যা বলি। বাংলায় আমরা অবশ্য একে দুই ভাবে ব্যবহার করি। ইংরাজি ‘ম্যাসাকার’ বা ধ্বংসযজ্ঞ হিশাবে। তখন এর যে আন্তর্জাতিক আইনী তাৎপর্য আছে সেটা স্থগিত থাকে। অর্থাৎ গণহত্যার প্রতিশব্দ হিশাবে ম্যাসাকার কথাটা অনুবাদ হিশাবে ব্যবহার করি। ফলে একদিনের কয়েক ঘন্টায় প্রায় ষাট জন মানুষ ও বহু হতাহত হবার ঘটনার মতো নির্মম হত্যাকাণ্ডকে যদি কেউ ‘গণহত্যা’ বলে তবে তারা ঠিকই বলেছেন। পহেলা মার্চ থেকে ৪ মার্চ পর্যন্ত আমার সামনে যে হিশাব রয়েছে তাতে দেখছি ৯২ জন জলজ্যান্ত মা্নুষকে হত্যা করা হয়েছে। পত্রিকা ও তথ্যের উৎস ভেদে সংখ্যার তারতম্য রয়েছে, কিন্তু সেই তর্কে আমি যাচ্ছি না। বেগম খালেদা জিয়া তাঁর সংবাদ সম্মেলনে একে সঠিক ভাবেই গণহত্যা বলেছেন। তবে আন্তর্জাতিক আইনের দিক থেকে এর একটা আইনী মানেও আছে।

গণহত্যার ধারণাটির উৎপত্তি ১৯৪৪ সালে। তার পরের বছরই নুরেমবার্গে আন্তর্জাতিক মিলিটারি ট্রাইবুনালে নাৎসি নেতাদের বিচার হয়। তাদের বিরুদ্ধে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগ আনা হয়। তখন ‘গণহত্যা’ কথাটা আইনী ধারণা হিশাবে ব্যবহার করা হয় নি, তবে যখন ১ অক্টোবর ১৯৪৬ সালে রায় ঘোষণা করা হয় তখন ‘গণহত্যা’ কথাটি বর্ণনাত্মক অর্থে – অর্থাৎ অপরাধের মাত্রা ও ধরণ বোঝাবার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল।

তাহলে আইনী দিক থেকে ধা্রণাটিকে কিভাবে আমরা বুঝব?

জাতিসংঘের সাধারণ সভা ৯ ডিসেম্বর ১৯৪৮ তারিখে ‘গণহত্যা প্রতিরোধ ও শাস্তির জন্য চুক্তি’-র প্রস্তাব গ্রহণ করে। বিশটি রাষ্ট্র তা রেটিফাই করার পর ১২ জানুয়ারি ১৯৫১ সালে এটি আন্তর্জাতিক আইনে পরিণত হয়।

কিন্তু আন্তর্জাতিক মিলিটারি ট্রাইবুনালের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে যে তারা যুদ্ধাবস্থায় ‘গণহত্যা’র বিচার করলেও শান্তির সময় বা যখন যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করে না তখন যদি গণহত্যা’ হয় তাকে আমলে নেন নি। সেপ্টেম্বর ১৯৩৯ সালে যুদ্ধ লেগে যাবার পর যে অপরাধ সঙ্ঘটিত হয়েছে কেবল তারা তাকেই আমলে নিয়েছিলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শান্তিকালীন সময়ে ‘গণহত্যা’-র বিষয় আলোচনার কেন্দ্রে চলে আসে। ১৯৪৬ সালে কিউবা, পানামা এবং ইন্ডিয়া একটি খসড়া প্রস্তাব জাতিসংঘে পেশ করে। এর উদ্দেশ্য ছিল এই সত্য প্রতিষ্ঠা যে যুদ্ধের সময় ছাড়াও শান্তির সময় – অর্থাৎ রাষ্ট্রের সঙ্গে রাষ্ট্রের যুদ্ধবিগ্রহ নাই, শান্তি বজায় আছে, এমন পরিস্থিতিতেও ‘গণহত্যা’ হতে পারে। সেই অপরাধ প্রতিরোধ যেমন করা দরকার তেমনি অপরাধীর শাস্তি বিধানও দরকার। এটাও জানান দেওয়া উদ্দেশ্য ছিল যে এই ধরণের অপরাধ সার্বজনীন আইনী এক্তিয়ারের অধীন (universal jurisdiction)। জাতিসংঘ ১১ ডিসেম্বর ১৯৪৬ সালে ৯৬(১) প্রস্তাব পাশ করে । এতে ঘোষণা দেওয়া হয় “গণহত্যা আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে একটি অপরাধ যা প্রতিটি সভ্য দেশ নিন্দা করে”। এই অপরাধ শান্তির সময়ে নাকি যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে হয়েছে সেই বিষয়ে কিছু বলা হয় নি। অর্থাৎ দুই অবস্থাতেই এই ধরণের অপরাধ সংঘটিত করা নিন্দনীয় ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিশাবে গণ্য হয়। এটাও স্বীকার করা হয় যে ‘গণহত্যা আন্তর্জাতিক উদ্বেগের বিষয়। তবে এই অপরাধ বিচার করবার আইনী এখতিয়ার কার সে বিষয়ে কিছু বলা হয় নি। তবে শেষাবধি গণহত্যা সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক যে চুক্তি সমাপ্ত হোল সেখানে ‘গণহত্যা’-কে বিশেষ ধরণের অপরাধ হিশাবেই শুধু স্বীকার করা হয় নি, একে প্রতিরোধ করবার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের দায়দায়িত্বকেও স্বীকার করে নেওয়া হোল। অর্থাৎ এই ধরণের অপরাধ ঘটবার লক্ষণ দেখা দিলে তাকে বন্ধ করবার দায় দায়িত্ব রাষ্ট্রের। রাষ্ট্রকে গণহত্যা প্রতিরোধের আইন পাশ করবার কথাও বলা হোল এবং এই ধরণের অপরাধে কেউ অপরাধী হলে তাকে আন্তর্জাতিক আদালতে হাজির করবার দায়ও রাষ্ট্রের ওপর বর্তানো হোল। আর্টিকেল ৯ অনুযায়ী এই অপরাধ বিচারের দায় দায়িত্ব দেওয়া হোল ইন্টারনেশানাল কোর্ট অব জাস্টিসের ওপর।

‘গণহত্যা’র আইনী সংজ্ঞায় প্রবেশের আগে এই ইতিহাসটুকু বলবার কারণ হচ্ছে কেউ যদি মনে করে থাকেন গণহত্যা শুধু যুদ্ধের সময় হয়, শান্তির সময় নয়, তাদের ভুল ভাঙানো দরকার। দ্বিতীয়ত অনেকে মনে করতে পারেন গণহত্যার বিচার শুধু গণহত্যা ঘটালেই হবে তা নয়, এই ধরণের অপরাধ যেন না ঘটে তার জন্য রাষ্ট্র প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহণ করছে কিনা সেটাও দেখার বিষয়।

 


কেউ যদি মনে করে থাকেন গণহত্যা শুধু যুদ্ধের সময় হয়, শান্তির সময় নয়, তাদের ভুল ভাঙানো দরকার। দ্বিতীয়ত অনেকে মনে করতে পারেন গণহত্যার বিচার শুধু গণহত্যা ঘটালেই হবে তা নয়, এই ধরণের অপরাধ যেন না ঘটে তার জন্য রাষ্ট্র প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহণ করছে কিনা সেটাও দেখার বিষয়।

 

 


 

আমরা এবার আইনী সংজ্ঞায় যাই।

গণহত্যার অপরাধ প্রতিরোধ ও শাস্তি বিধানের আন্তর্জাতিক চুক্তির আর্টিকেল দুই অনুযায়ীঃ গণহত্যার অর্থ হচ্ছে কোন গোষ্ঠিকে পুরাপুরি কিম্বা তাদের কোন একটি খণ্ড বা অংশকে ধ্বংস করা। কী ধরণের গোষ্ঠি (১) যে অর্থে আমরা নিজেদের বাঙালি জাতি বুঝি সেই অর্থে, (২) যে অর্থে পাহাড়ি বা সমতলের ক্ষুদ্র জাতি সত্তা নিজেদের একটি গোষ্ঠি মনে করে, (৩) যে অর্থে ইংরেজি ‘রেইস’কে জাতি অর্থে আমরা বুঝি আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে (৪) যে অর্থে ধর্মীয় গোষ্ঠিকে আমরা বুঝি।

তাহলে কোন ধর্মীয়গোষ্ঠিকে পুরাপুরি কিম্বা তার কোন খণ্ড বা অংশকে হত্যা বা ধংস করা গণহত্যার মধ্যে পড়ে। যেমন এই গোষ্ঠির সদস্যদের হত্যা করা, তাদের শারিরীক ও মানসিক ক্ষতি সাধন করা, এই গোষ্ঠিকে পরিকল্পিত ভাবে এমন অবস্থায় ঠেলে দেওয়া যাতে তাদের পুরোপুরি বা আংশিক শারিরীক ক্ষতি সাধন করা যায়। ইত্যাদি।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে সু্নির্দিষ্ট ভাবে জামাত-শিবির ‘নির্মুল’ করবার রাজনীতি চলছে সেটা আমরা জানি। এতদিন এই ‘নির্মূল’ কথাটার অর্থ মানুষ ধরে নিয়েছিল বিচার। কিন্তু যারা নির্মুলের রাজনীতি করছিলেন তারা নানাভাবেই ব্যক্ত করছিলেন যে তারা আসলে বিচার নয়, ‘নির্মূল’ই করতে চান। তারপরেও জনগণ মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার হোক সেটা চেয়েছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের স্কাইপি কেলেংকারি ফাঁস হয়ে যাবার পর এটা স্পষ্ট হয়ে যায় যে আসলে বিচার হচ্ছে না। কাদের মোল্লার বিচারের রায় ফাঁসি না হওয়ায় আমরা দেখলাম শাহবাগ নামে একটি ঘটনা ঘটছে। সেখানে বিচার নয়, অপরাধীদের ফাঁসি দেবার জন্য রাতদিন দাবি করা হচ্ছে। শাহবাগ থেকে বারবার ঘোষণা করা হচ্ছে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধে যারা অভিযুক্ত তাদের ফাঁসি ছাড়া অন্য কোন রায় তারা মানবে না।

 


তাহলে কোন ধর্মীয়গোষ্ঠিকে পুরাপুরি কিম্বা তার কোন খণ্ড বা অংশকে হত্যা বা ধংস করা গণহত্যার মধ্যে পড়ে। যেমন এই গোষ্ঠির সদস্যদের হত্যা করা, তাদের শারিরীক ও মানসিক ক্ষতি সাধন করা, এই গোষ্ঠিকে পরিকল্পিত ভাবে এমন অবস্থায় ঠেলে দেওয়া যাতে তাদের পুরোপুরি বা আংশিক শারিরীক ক্ষতি সাধন করা যায়।

 

 


নিয়মতান্ত্রিক ভাবে বিক্ষোভ জানাবার সকল পথ ক্ষমতাসীনরা বন্ধ করে দেওয়ায় জামাতে ইসলামী বলপ্রয়োগের পথে যায়। এরপর ২৮ ফেব্রুয়ারি সাইদীর ফাঁসির রায় ঘোষিত হলে পহেলা মার্চ জনগণ বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে শুরু করে। সকল মানবিক রীতিনীতি লংঘন করে পুলিশ সরাসরি বিক্ষোভকারীদের গুলি চালায়। নির্বিচার গুলি চালাবার নির্দেশ সরকারের পক্ষ থেকেই এসেছে। অর্থাৎ হত্যার উদ্দেশ্যেই গুলি চালানো হয়। যারা বিক্ষোভ করছিলেন এবং যারা হতাহত হয়েছিলেন তাদের খুব কমই জামাত শিবিরের অন্তভূর্ক্ত। কিন্তু সরকার সমর্থক গণমাধ্যম এদের সকলকেই জামাত শিবির হিশাবে অভিহিত করে এবং বিভিন্ন গণমাধ্যম নির্বিচার হত্যার পক্ষে যুক্তি দিতে থাকে।

 

আন্তর্জাতিক আইনের দিক থেকে এই ধরণের সুনির্দিষ্ট ও পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড গণহত্যাই। আইনগত দিক থেকে এই হত্যাযজ্ঞকে গণহত্যা হিশাবে প্রমাণ করা চলে। সরকার সমর্থক গণমাধ্যমগুলো একে এখন অস্বীকার করবার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

তাদের জন্য গণহত্যা সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিশাবে কি কি অন্তর্ভূক্ত হয়েছে সে সম্পর্কে কয়েকটি কথা বলে শেষ করব।

আর্টিকেল তিন অনুসারে অপরাধগুলো হচ্ছে (১) গণহত্যা (২) গণহত্যার জন্য ষড়যন্ত্র করা। (এর উদ্দেশ্য হচ্ছে গণহত্যা ঘটবার আগেই যেন তা প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়) (৩) গণহত্যায় সরাসরি প্ররোচনা দেওয়া এবং জনগণের মধ্যে উন্মাদনা সৃষ্টি করে গণহত্যা সংঘটিত করবার জন্য প্ররোচিত করা (৪) গণহত্যার চেষ্টা করা এবং (৫) গণহত্যায় সংশ্লিষ্ট থাকা। বাংলাদেশে শাস্তিযোগ্য এইসব অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কিনা তার বিচার আমি পাঠকের ওপর ছেড়ে দিলাম।

আমরা একাত্তরের যুদ্ধাপরাধ ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার চাই। এটা নিছকই শহিদ ও শহিদ পরবারের প্রতি আমাদের দায় মাত্র নয়, একই সঙ্গে গণহত্যার বিরুদ্ধে আমাদের নৈতিক শক্তিরও জায়গা। সেই দিক থেকে যদি বিচার করি তাহলে অবশ্যই আমরা এমন কোন রাজনীতিতে জড়িত থাকতে পারি না যে রাজনীতি ‘নির্মূল’ করবার কথা বলে মূলত আরেকটি গণহত্যারই প্ররোচনা দেয়। মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার করতে হলে এই আত্মঘাতী রাজনীতির পথ পরিহার করতে হবে।

(‘গণহত্যা প্রতিরোধ ও শাস্তির জন্য চুক্তি’-র ইংরেজি যাঁরা পড়তে চান তারা এই লিঙ্কে যেতে পারেনঃ http://www.hrweb.org/legal/genocide.html

 

৫ মার্চ ২০১৩। ২১ ফাল্গুন ১৪১৯। শ্যামলী।

 


প্রাসঙ্গিক অন্যান্য লেখা


লেখাটি নিয়ে এখানে আলোচনা করুন -(0)

Name

Email Address

Title:

Comments


Inscript Unijoy Probhat Phonetic Phonetic Int. English
  


শব্দানুযায়ী সন্ধান : গণহত্যা, শাহবাগ, যুদ্ধাপরাধ

View: 3701 Leave comments-(0) Bookmark and Share

EMAIL
PASSWORD