সাম্প্রতিক রাজনীতি গণতন্ত্র ও গঠনতন্ত্র আদালত, বিচার ও ইনসাফ শাপলা ও শাহবাগ সাম্প্রদায়িকতা, জাতীয়তাবাদ ও রাষ্ট্র মানবাধিকার ও গণতন্ত্র সৈনিকতা ও গণপ্রতিরক্ষা ভারত ও আঞ্চলিক রাজনীতি আন্তর্জাতিক রাজনীতি অর্থনৈতিক গোলকায়ন ও বিশ্বব্যবস্থা ফিলিস্তিন ও মধ্যপ্রাচ্য কৃষক ও কৃষি শ্রম ও কারখানা শিক্ষা: দর্শন, রাজনীতি ও অর্থনীতি বিজ্ঞান ও কৃৎকৌশল জীবাশ্ম জ্বালানির অর্থনীতি ও রাজনীতি স্বাস্থ্য ও পুষ্টি নারী প্রশ্ন সাহিত্যের সমাজতত্ত্ব ও রাজনীতি আবার ছাপা চিন্তা পুরানা সংখ্যা সাক্ষাৎকার

ফরহাদ মজহার


Monday 02 September 13

print

বারাক ওবামা যা আশা করেছিলেন সেটা হয় নি। বিলাতের পার্লামেন্ট সিরিয়ায় সামরিক হামলার সিদ্ধান্ত অনুমোদন করে নি। তিরিশে অগাস্ট বৃহস্পতিবার এই বিষয়ে তর্ক হয়েছে পার্লামেন্টে। সংখ্যাগরিষ্ঠ সিদ্ধান্ত হচ্ছে, ব্রিটেন যুদ্ধে জড়াবে না। ওবামার প্লান এতে কিছুটা এলোমেলো হয়ে গেল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এ কারনে একা হয়ে যাবে সেটা ভাবার অবশ্য কোন কারন নাই। এরপরও সিরিয়ার হামলায় অনেক দেশের সমর্থন পাওয়া যাবে। তবুও, মানতে হবে, ওবামার সামরিক বাসনা এতে কিছুটা দমিত হতে পারে। সিরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক হামলার চালাবার যুক্তি খাড়া করা তার পক্ষে কঠিন হয়ে যাবে।

বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তিনি রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছেন। কিন্তু তার কোন সুস্পষ্ট বা অকাট্য প্রমাণ দিতে পারছে না কেউই। বরং উলটা অভিযোগ উঠেছে সরকার নিয়ন্ত্রিত এলাকায় ভয়াবহ ও বিষাক্ত গ্যাস ব্যবহার করেছে বরং বিদ্রোহীরাই।

প্রশ্ন উঠেছে ওবামা কি যুদ্ধের জন্য কংগ্রেসের অনুমোদন চাইবেন? তার সম্ভাবনা খুবই কম। কংগ্রেস এখন অধিবেশনে নাই। সেটা একটা কারণ। তবে গৌণ। মূল কারন হচ্ছে, চাইতে গেলে বিলাতের পার্লামেন্টের মত সেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ মত যুদ্ধের বিপক্ষেই যাবে। ইরাকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালানো হয়েছিলো সম্পূর্ণ মিথ্যার ওপর ভিত্তি করে। আন্তর্জাতিক বিধি বিধান ও নীতিনৈতিকতা লংঘন করে। সেই যুদ্ধ পাশ্চাত্য সভ্যতার(?) ঘোর কেলেংকারি’ হিসাবে এতোই প্রতিষ্ঠিত যে সিরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধের পক্ষে মত তৈরি করা তুলনামূলক ভাবে কঠিন।

ওবামাকে অতএব একটু থ মারতে হচ্ছে। বৃহস্পতিবার-শুক্রবারের দিকে যুদ্ধ শুরু হয়ে যাবার আগাম হুঁশিয়ারি শোনা যাচ্ছিল। সেখানে খানিক দম পড়েছে। রাশিয়া ও চিনের পালটা হুমকি এবং মধ্যপ্রাচ্যে বিভিন্ন শক্তির যে সমীকরণ বর্তমান সেইসব বিচার করে অনেকে দাবি করছেন সিরিয়ার নেতৃত্বাধীন পাশ্চাত্য হামলার অর্থ কার্যত তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে যাওয়া। বিশ্বপরিস্থিতি এতোটাই গরম হয়ে আছে।

আসলে সিরিয়ার পরিস্থিতি যথেষ্ট জটিল। সবকিছু সাদাকালো নয়। বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে যারা মাঠে লড়ছে তাদের মধ্যে আল কায়েদা আছে। সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে তারা লাভবান ও শক্তিশালী হয়েছে। প্রখ্যাত সাংবাদিক রবার্ট ফিস্ক বেশ শ্লেষের সঙ্গেই বলেছেন, মার্কিনীরা যদি সিরিয়ায় হামলা চালায় তাহলে সেটা হোল আল কায়েদার পক্ষে সহায়তা। অর্থাৎ আল কায়েদার হয়ে সিরিয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্রদের যুদ্ধ হবে সেটা। রবার্ট ভালই বলেছেন, যে মানুষগুলা ৯/১১র সময় অগুনতি নিরীহ মার্কিন মেরে নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ার সাফা করে দিয়েছিল তারা বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সেই দেশের সহায়তা পেতে যাচ্ছে। এ এক পরাবাস্তব পরিস্থিতি। ওবামা, ক্যামেরন আর ওলাঁদের জন্য এ এক জব্বর কাজ হোল বটে। রবার্ট ফিস্ক অভিজ্ঞ সাংবাদিক, তিনি সরলীকরণের জন্য কথাটা বলেন নি, মার্কিন যুদ্ধবাজ নীতির বিরোধিতা করবার জন্যই বোঝাতে চেয়েছেন, মার্কিনীরা একদিকে আল কায়েদার বিরুদ্ধে অনন্ত যুদ্ধের কথা বলে আর অন্যদিকে তাদের অপছন্দের বাশার আল আসাদকে শায়েস্তা করবার জন্য আল কায়েদাকেই সহায়তা করতে আপত্তি করে না।

তবে নিশ্চয়ই পরিস্থিতি এতো সোজাসাপ্টা নয়। সিরিয়ায় যে-গৃহযুদ্ধ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্ররা শুরু করেছে তার কারণে লাখ খানেকের বেশী মানুষ ইতোমধ্যেই প্রাণ দিয়েছে। সে যে পক্ষেরই হো্ক না কেন। দেশটি ছত্রখান হয়ে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষের দিক থেকে দেখলে এটা বনে বাঘ জলে কুমিরের দশা। একদিকে একনায়তান্ত্রিক শাসক বাশার আল আসাদের অত্যাচার ও দমন পীড়ন, আর অন্যদিকে পরদেশী হস্তক্ষেপ। বিদ্রোহীদের শক্তি পুরোটা তাদের নিজেদের নয়, বাইরের। জনগণের সমর্থন তাদের পেছনে আসলে ঠিক কতোটা সেটাও অস্পষ্ট। কিন্তু দেশটি ইতোমধ্যেই যেখানে গিয়ে পৌঁছেছে সেখান থেকে ফিরে আসা অসম্ভব। এমন কি এমন কোন জয়গায় দাঁড়াবার হদিস পাওয়া যাচ্ছে না যেখানে সি্রিয়ার সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের সকল পক্ষের একটা সাধারণ স্বার্থ অন্বেষণ করা সম্ভব হয় এবং সেই স্বার্থের ওপর দাঁড়িয়ে আত্মঘাতী যুদ্ধ থামাবার কিছু সূত্র পাওয়া যায়। সাধারণ মানুষকে আরও অনেক রক্ত দিতে হবে। অথচ যে পক্ষই টিকে থাকুক বা জিতুক তার ফল কী দাঁড়াবে সেটা খুবই অপরিচ্ছন্ন হয়ে আছে।

ইরান ও হিজবুল্লাহ প্রাণপণ বাশার আল আসাদের সরকার ও ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সহায়তা করছে। ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হামলার বিস্তর হুমকি এর আগে আমরা শুনেছি। ইরানের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির টানাপোড়েনের কারনে যে অস্থিরতা ও অস্থিতিশীলতা আমরা দেখেছি সেটা এখন নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবার মধ্য দিয়ে স্তিমিত হয়ে এসেছে, মনে হচ্ছে। ইরানিরা পাশ্চাত্যের বিরুদ্ধে জবাবী প্রচারের চেয়ে নিঃশব্দ কূটনীতির পথই বেছে নিয়েছে। আহমেদিনিজাদ যেভাবে চড়া কথা বলতেন আর জোরে জবাব দিয়ে ক্ষেপিয়ে তুলতেন, নতুন প্রেসিডেন্ট ‘মধ্যপন্থী’ বলে সেই গরম কূটনীতির পথ ধরবেন না। সেটা নিশ্চিত। কিন্তু মধ্যপ্রাচ্য ও মধ্য এশিয়ায় ইরানের শক্তি কেন্দ্রীভূত করতে ইরান তার সমস্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, এতে সন্দেহ নাই। আর সেই দিক থেকে আসাদকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখা ইরানের জন্য জরুরী। ইরাকে সাদ্দাম হুসেনের পতনের পর সে অঞ্চলে ক্ষমতার সমীকরণ শিয়াদের পক্ষে চলে গিয়েছে, এই বাস্তবতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের পাশ্চাত্য মিত্রেরা যেমন তাদের স্বার্থের অনুকুল হিসাবে দেখছে না, ঠিক তেমনি সুন্নি মুসলমানদের জন্যও এ একটা অসহনীয় পরিস্থিতি। বাশার আল আসাদ যদি টিকে যান তার মানে সিরিয়ায় ইরানেরই বিজয় হোল। বিদ্রোহীদের কবল থেকে বাশারের সৈন্যরা যখন বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ শহর আবার দখল করে নিলো, তাতে দূর থেকে মনে হচ্ছে বাশার এই যুদ্ধে টিকে যাচ্ছে্ন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার পাশ্চাত্য মিত্রদের পক্ষে এটা মেনে নেওয়া কঠিন। ঠিক যেমন কঠিন সৌদি আরব, ইসরায়েল ও মধ্যপ্রাচ্যের রাজারাজড়াদের জন্য। মাঠে আল কায়েদার জন্যও সেটা মেনে নেওয়া কঠিন। ফলে মার্কিনীরা আল কায়েদার পক্ষেই বুঝি লড়তে যাচ্ছে কথাটা সরল অর্থে বললেও, পরিস্থিতি তার চেয়ে অনেক অনেক বেশী জটিল ও ঘোলাটে।

সিরিয়ার যুদ্ধ বোঝার প্রাথমিক দিক হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যে সিরিয়ার ভূরাজনৈতিক অবস্থান। একে একটা সুদূরপ্রসারী সামরিক পরিকল্পনার অন্তর্ভূক্ত গণ্য করাই সঠিক। এই অর্থে যে এই যুদ্ধ ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ন্যাটো ও ইসরায়েলি সামরিকশক্তির অভিযান শুধু নয়। একই সঙ্গে রাশিয়া ও চিনের বিরুদ্ধে অভিযান। রাশিয়া এবং চিন সেভাবেই ভূরাজনৈতিক দিক থেকে একে দেখছে এবং সেই বিবেচনা মাথায় রেখেই তাদের অবস্থান নিয়েছে। বিশ্বের জ্বালানি সম্পদের পরিস্থতির দিক থেকে দেখলে মধ্য প্রাচ্য-মধ্য এশিয়ার তেলের মজুদের ওপর আধিপত্য ও দখলদারি বজায় রাখা এই যুদ্ধের আশু উদ্দেশ্য। এই উদ্দেশ্যের সঙ্গে যুক্ত তেলের পাইপ লাইনগুলো রক্ষা করা ও নিজেদের অধীনস্থ রাখার প্রতিযোগিতা ও লড়াই। এই দিকগুলো কমবেশী স্পষ্ট।

বিশ্বব্যাপী সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ শুধু দৃশ্যমান সামরিক রূপ নিয়ে জারি নেই, তার রাজনৈতিক প্রকাশও আছে। সেটা আমরা দেখি নতুন ভাবে মধ্য প্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা, সাহারা মরুভূমি দক্ষিণাঞ্চল ও মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর আভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক পরিস্থিতি সাম্রাজ্যবাদী স্বার্থের পক্ষে সাজানোর লড়াই হিসাবে। সিরিয়ার যুদ্ধ এই সামগ্রিক সামরিক-রাজনৈতিক যুদ্ধ পরিকল্পনা থেকে আলাদা কিছু নয়। যাঁরা সিরিয়ার যুদ্ধের খবর অনেক ঘনিষ্ঠ ভাবে নজর রাখেন তারা দাবি করছেন সিরিয়ার ‘শাসক বদল’ (regime change) করবার কাজে ২০১১ সাল থেকে আল কায়েদার সক্রিয়তার পেছনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রণোদনা বা সমর্থন রয়েছে। কিন্তু সে চেষ্টা কার্যত ব্যর্থ হয়েছে। যার কারণে এখন সরাসরি সামরিক হামলার সিদ্ধান্ত নিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাধ্য হচ্ছে। আল কায়েদা ছাড়াও বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধ সিরিয়ায় জনগণের ন্যায়সঙ্গত বিক্ষোভকে উসকে দিয়ে ভাড়াটে সৈন্য পাঠিয়ে উৎখাতের পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়েছে বলা যায়। বাশার আল আসাদকে এখনও উৎখাত করা যায় নি। উপায়ান্তর না দেখে এখন বোমারু বিমানের হামলা এবং দরকার হলে সিরিয়ার মাটীতে বিদেশী সৈন্য পাঠাবার পরিকল্পনা করতে হচ্ছে। বিদ্রোহীদের দিয়ে সরকার উৎখাতের কাজ হচ্ছে না এবং বিদ্রোহীরা পরাজিত হওয়ার অর্থ হচ্ছে হচ্ছে ইরানের বিজয়। এটা হতে দেওয়া যায় না। যে কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্রদের সিরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে যেতেই হচ্ছে।

গত পনেরো বছরের হিসাব নিলে আরব বা মুসলিম দেশগুলোর বিরুদ্ধে পাশ্চাত্যর সামরিক অভিযান ঘটেছে নয় বার। সুদান, আফগানিস্তান, ইরাক, লিবিয়া ও মালি, আর ঘাতক ড্রোনের হামলা চলছে ইয়ামেন, সোমালিয়া এবং পাকিস্তানে। এই বাস্তবতা সবসময়ই চোখের সামনে হাজির রাখা দরকার।

মুশকিল হচ্ছে এই যুদ্ধকে কিভাবে ‘ন্যায়সঙ্গত’ যুদ্ধ বলে হাজির করবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র? যেহেতু সিরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবার কোন যুক্তি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না ঠিক সেই সময়ই গ্যাসে প্রায় ৩৫৫ জন নিরীহ বেসামরিক মানুষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। এখন সিরিয়ার ওপর মিসাইল আক্রমণের যে প্রস্তুতি চলছে সেখানেও সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের মজুদ থাকবার কথা বলা হচ্ছে। আসলে সিরিয়ার আদৌ রাসায়নিক অস্ত্র আছে কিনা এবং ২১ অগাস্ট যে গ্যাসের হামলায় বহু মানুষ নিহত হয়েছে সেই গ্যাস আসলে কী, তা তদন্তের জন্য জাতিসংঘের রাসায়নক অস্ত্র পরিদর্শক দল কাজ করছে। তাদের তদন্ত শেষ হবার আগেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের ঘোষণা হচ্ছে, -- সিরিয়া রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে সে তথ্যের পক্ষে তাদের কাছে অকাট্য প্রমাণ আছে। জাতিসংঘের তদন্ত কিন্তু শেষ হয় নি, জাতিসংঘের সেক্রেটারির কাছে প্রতিবেদন জমা দেওয়া অনেক পরের কথা। কিন্তু যুদ্ধের দামামা বেজে উঠেছে। নিরাপত্তা পরিষদের অনুমতি নেওয়াও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্ররা জরুরী মনে করছে না।

ভুলে যাওয়া উচিত নয় যে ইরাকে হামলার সময় বলা হয়েছিল ইরাক গণবিধ্বংসী মারণাস্ত্র মজুদ করে রেখেছে। গোয়েন্দাদের এই তথ্য ভুল প্রমাণিত হয়েছে। তা ছাড়া মনে আছে নিশ্চয়ই যে গোয়েন্দাদের তথ্যের ভিত্তিতে বিল ক্লিনটন এক ওষুধের কারখানায় হামলা চালাতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি আল কায়েদার বোমা হামলার প্রত্যুত্তর দিয়ে বীরত্ব দেখানো কর্তব্য মনে করেছিলেন। ওটা নাকি রাসায়নিক অস্ত্র বানাবার কারখানা ছিল।কিন্তু পরে পাহাড় কাঁপিয়ে পাহাড়ের গোড়ার গর্ত থেকে একটি ইঁদুর বের হয়ে এসেছিল: পর্বতের মূষিক প্রসব! আসলে ওটা রাসায়নিক অস্ত্র বানাবার কারখানা ছিল না, ছিল ওষুধের কারখানা। তবে দামেস্কের শহরতলীতে যে হামলায় বহু মানুষ আহত ও নিহত হয়েছে সেটা ভয়ঙ্কর। এটা ভয়াবহ অপরাধ । এভাবে সাধারণ মানুষকে হত্যা ও আহত করবার বিহিত অবশ্যই হওয়া উচিত।

এই পরিস্থিতিতে সিরিয়ার যুদ্ধে নীতিগত জায়গা থেকে বিবাদমান দুইপক্ষের কোন একটির পক্ষে দাঁড়ানো কঠিন। সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের বিরোধিতা করা একটি সাধারণ নীতি, কিন্তু সিরিয়ায় গণতান্ত্রিক সংগ্রামের ধারাটিকে এই যুদ্ধ পরিস্থিতিতে শনাক্ত করা মুশকিল। সিরিয়ার আভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি এবং সিরিয়াকে কেন্দ্র করে আন্তর্জাতিক রাজনীতির জটিল অংক সরল সমীকরণ নয়। কিন্তু কিছু দিক পরিষ্কার।

রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্য বাশার আল আসাদ দায়ী থাকুক বা না থাকুক, সিরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক হামলা সাধারণ মানুষের জীবন আরও বিপন্ন করে তুলবে। রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারকে ছুতা হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা গ্রহণ করতে চাইছে। এটা প্রহসন যে মধ্যপ্রাচ্যে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে মার্কিন মিত্র হচ্ছে সৌদি আরব। সিরিয়ার জনগণের দুর্দশা ও দুর্ভোগকে আশ্রয় করে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির এই ধোঁয়াশা পরিস্থিতিতে আমাদের কাজ হচ্ছে সিরিয়ার জনগণের পক্ষে দাঁড়ানো। আশা করা যে প্রায় অসাধ্য হলেও তাঁরা তাদের সংকট নিজেরাই সমাধান করতে সক্ষম। যুদ্ধ কী ভয়ানক প্রাণঘাতী হতে পারে সে অভিজ্ঞতা সকলেরই আছে।

সিরিয়াকে কেন্দ্র করে যখন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের কথা বলা হয় তখন তার সম্ভাব্য ভয়াবহতা সম্পর্কে সারা দুনিয়ার মানুষকেই সচেতন হয়ে ওঠা দরকার। রাশিয়া এবং চিনের অবস্থানের কারণে হামলার পরিণতি সেদিকে গড়াবে বলে অনেকে আন্দাজ করেন। আর, তার সঙ্গে যুক্ত মধ্য প্রাচ্য ও মধ্য এশিয়ার উত্তপ্ত পরিস্থিতি।

বারাক ওবামা পরিষ্কারই বলেছেন, সিরিয়ার হামলার উদ্দেশ্য বাশার আল আসাদকে অপসারণ নয়। তাহলে সেটা কি? সেটা হচ্ছে বিদ্রোহীদের সহায়তা করা। এর ফলে সিরিয়ায় যে দাঙ্গা হাঙ্গামা চ্লতে থাকবে। এর নিরসন হবে না। মধ্যপ্রাচ্যে দাঙ্গা ও হত্যার রাজনীতির বিস্তার ঘটিয়ে ঘোলা পরিস্থিতিতে সুবিধা আদায় করাই মার্কিন নীতি। বড় কোন যুদ্ধে জড়ানো মার্কিন যুক্ত্রাষ্ট্রের পক্ষে এখন অসম্ভব।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই দুর্বল জায়গাটা তার পতনকেও ত্বরান্বিত করতে পারে। আমাদের জীবদ্দশায় সেটা দেখে গেলে অবাক হবো না।

৩০ অগাস্ট ২০১৩। ১৫ ভাদ্র ১৫২০। শ্যামলী।

 -------

বি: দ্র:  বারাক ওবামা সিরিয়ায় সামরিক আগ্রাসন চালাবার জন্য কংগ্রেসের অনুমোদন চাইবেন না মনে করা হয়েছিল। কিন্তু ডেভিড ক্যামেরন ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তাব নাকচ করে দেবার পর ওবামা পিছু হটতে বাধ্য হয়েছেন। দামাস্কাসের শহরতলিতে গ্যাসে এখন নিহতদের সংখ্যা বলা হচ্ছে: ১৪২৯ ।


প্রাসঙ্গিক অন্যান্য লেখা


লেখাটি নিয়ে এখানে আলোচনা করুন -(0)

Name

Email Address

Title:

Comments


Inscript Unijoy Probhat Phonetic Phonetic Int. English
  

View: 4615 Leave comments-(0) Bookmark and Share

EMAIL
PASSWORD