‘জর্মান ভাবাদর্শ’: পাঠ প্রস্তুতি


মার্কস আর এঙ্গেলস-এর তরুণ বয়সের যৌথ রচনার খসড়া ‘জর্মান ভাবাদর্শ’। তাঁদের জীবদ্দশায় এই খসড়া ছাপা হয় নি। কমিউনিজম সম্পর্কে কমিউনিস্ট পার্টির সরকারি ভাষ্যের সঙ্গে এর মর্ম পুরাপুরি মেলানো কঠিন। ফলে ছাপা হবার পরে এর যে সারকথা ও ব্যাখ্যা সরকারি ভাবে হাজির করা হয়েছিলো তার সীমাবদ্ধতা ধরা পড়তে দেরি হয় নি। আমরা অধিকাংশই জানিনা যে ‘মার্কসবাদ’ নামে যা আমাদের কাছে পরিচিত তার নির্ধারক  ভাষা,পরিভাষা বা বর্গ-- যেমন, ‘ঐতিহাসিক বস্তুবাদ’, ‘দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ’, ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ব্যাখ্যা’, ইত্যাদি মার্কসের নয়, এঙ্গেলসের। মার্কসকে এঙ্গেলস যেভাবে ব্যাখ্যা করেছেন এবং কমিউনিস্ট পার্টি যে ভাষ্য গ্রহণ করেছে মূলত সেই ভাষ্যই  ‘মার্কসবাদ’-এর জন্ম দিয়েছে।

এর পরের ইতিহাস আমাদের জানা। একটা পর্যায় অবধি মার্কসের নামে গড়ে ওঠা মতাদর্শ বৈপ্লবিক ভূমিকা পালন করার পর যখনই ‘মার্কসবাদ’ নামে সেটা এক প্রকার কেতাবকেন্দ্রিক আধুনিক ধর্মচিন্তা (?) হিসাবে দানা বাঁধতে শুরু করল, তখন দেখা গেলো বাস্তবের লড়াই সংগ্রাম গৌণ হয়ে গিয়েছে। বরং বিমূর্ত ভাবে মতাদর্শের ভূত অন্য ধর্ম বা মতাদর্শের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নেমে পড়েছে।  মার্কসবাদ ও সমাজতান্ত্রিক শিবিরের ক্ষয় ঘটল দ্রুত।  বার্লিন ওয়ালসহ প্রাক্তন সোভিয়েত ইউনিয়ন তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ল, চিন পুঁজিতন্ত্রের পথ ধরল, ইত্যাদি। বাংলাদেশে আমরা দেখলাম শ্রেণী সংগ্রাম বাদ, প্রধান দুষমণ হয়ে উঠেছে ইসলাম।  নিপীড়িত মজলুমের পক্ষে না দাঁড়িয়ে ‘মার্কসবাদ’ হয়ে উঠেছে দুর্বল দেশে পাশ্চাত্যের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের সহযোগী। কথাগুলো আমরা বহুবার বলেছি, কিন্তু এখান থেকে বের হবো কি করে?

ভালো যে ‘মার্কসবাদী’ পরীক্ষানিরীক্ষা ব্যর্থ হবার পর এখন খোলামনে মার্কস পড়বার পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এই সুযোগে মার্কস পঠনপাঠনকে আমরা উৎসাহিত করবার চেষ্টা করছি। এটা প্রায় সকলেই স্বীকার করেন, ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ ধর্ম ও দর্শন পর্যালোচনা  এবং  রাজনৈতিক তৎপরতার ইতিহাসে অপরিসীম গুরুত্বপূর্ণ ভাংচুরের জমিন। সক্রিয় ও সজীব চিন্তার জন্য সোনার খনির মতো। বাংলাদেশে যদি চিন্তা ও তৎপরতার ক্ষেত্রে কোন বৈপ্লবিক রূপান্তরের বাসনা আমরা পোষণ করি তাহলে এই খসড়া পাণ্ডুলিপি না পড়ে উপায় নাই। কেন?

১. খ্রিস্টিয় ধর্ম ও আধুনিক দর্শনের সত্য হেগেলে এসে অভিন্ন হয়ে উঠেছে আর বিদ্রোহী তরুণ হেগেলিয়ানরা হেগেলের পর্যালোচনা করতে গিয়ে খ্রিস্ট ধর্ম ও হেগেলের পর্যালোচনা করছেন, মানুষের মাথা থেকে ভুল চিন্তার ভূত তাড়াবার জন্য নতুন চিন্তার আমদানির কথা বলছেন তারা। অথচ ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ সম্পূর্ণ নতুন কথা বলল। মাথায় ভর করা চিন্তার ভূত নামাতে গিয়ে অন্য চিন্তা প্রতিস্থাপন করা আসলে নতুন ভূত চাপিয়ে দেওয়া মাত্র। তাই মার্কস স্রেফ চিন্তাগিরি থেকে বেরিয়ে এসে চিন্তাকে মানুষের জাগতিক সম্বন্ধের জায়গা থেকে বিচার করবার কথা বললেন। চিন্তাকে বুঝতে হলে চিন্তার সঙ্গে বাস্তব জগতের সম্বন্ধ বুঝতে হবে। এক ভূতের জায়গায় আরেক ভূত মাথায় না বসিয়ে দিলে ভূতের বেগার খাটা হবে মাত্র। তাহলে চিন্তার কাজ হচ্ছে বাস্তব জগত নিয়ে ভাবা এবং তাকে বদলাবার কাজে তৎপর হওয়া।

২. আফসোস অধিকাংশ বিশেষত দলীয় মার্কসবাদীরা এর ব্যাখ্যা করেছে এরকম যে আমাদের আর চিন্তা করার দরকার নাই। ধরো তক্তা মারো পেরেক। বিপ্লব করো। অথচ দেখা যাচ্ছে মার্কস চিন্তা করা একদমই বাদ দেন নি। বরং ঢাউস ঢাউস বই লিখেছেন। কিন্তু সেটা জাগতিক বিষয়ে, ইহলৌকিক যাপনের ব্যাখায় ও বিশ্লেষণে। মার্কস বুঝিয়ে গেলেন, জাগতিকতা বিবর্জিত চিন্তা ভুতুড়ে চিন্তার জগত মাত্র। বুঝতে হবে মানুষ জগত ও অন্যান্য মানুষের সঙ্গে কী ধরণের বৈষয়িক সম্পর্কে আবদ্ধ হয়। উৎপাদন সম্পর্কের মধ্য দিয়ে ‘বর্তমান’ হয় বা ‘বিরাজ’ করে। এই চিন্তার সঙ্গে বাংলার ভাবান্দোলনের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ – বিশেষত যখন নদিয়া দাবি করে তারা অনুমানে বিশ্বাস করে না, তাদের আস্থা বর্তমানে।

৩. কিন্তু পার্থক্য হচ্ছে এই বর্তমানকে বোঝার জন্য সবার আগে দরকার পুঁজি’ বা পুঁজিতান্ত্রিক সম্পর্কের বিচার। দার্শনিক মার্কস নতুন কথা বললেন, নতুন জিনিস বোঝালেন: একালে ধর্ম বা দর্শনেরই আরেক নাম অর্থশাস্ত্র।; বৈষয়িক জীবনের উৎপাদন ও পুনরুৎপাদনের সম্পর্কগুলো বোঝা। তিনি এর নাম দিলেন: ‘উৎপাদন সম্পর্ক। সম্পর্ক বা সম্বন্ধ বিচারের জায়গা থেকে আমরা এর নতুন নাম দিতে পারি: সম্পর্ক বিচারের ব্যাকরণ কিম্বা সংক্ষেপে সম্পর্কর্শাস্ত্র। ‘জর্মান ভাবাদর্শ' হচ্ছে সেই গুপ্ত সুড়ঙ্গের মতো যা আবিষ্কার করতে পারলে আমরা বুঝব মার্কস কেন এবং  কিভাবে দর্শন থেকে বেরিয়ে এসে ধর্ম, দর্শন বা ভাবচর্চাকে অর্থশাস্ত্রীয় বিচার (Critique of Political Economy) বা সম্পর্ক বিচারের ব্যাকরণের অধীনে বিশ্লেষণ করতে চাইছেন। ধর্ম, চিন্তা বা মতাদর্শ মার্কসের পরে আর আগের মতো ইহলৌকিকতা থেকে বিচ্ছিন্ন রহস্যময় বিষয় হয়ে রইলো না।

খসড়া পাণ্ডুলিপির রাজনীতি

কার্ল মার্কস ও ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস ১৮৪৫ সালের এপ্রিল কিম্বা মে মাসের শুরুর দিকে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইটি লিখতে শুরু করেন।  যদিও 'জর্মান ভাবাদর্শ' প্রধানত মার্কসেরই লেখা , কিন্তু দুই বন্ধু মিলেই ১৮৪৫-১৮৪৬ সালে এক সঙ্গে পাণ্ডুলিপির খসড়া তৈরি করেন। বইটি পাঠের প্রস্তুতি হিসাবে কিছু জরুরী বিষয় জানা দরকার, এখানে সেই বিষয়গুলো আলোচনা করা হয়েছে।

বইটির খসড়া তৈরি করলেও মার্কস-এঙ্গেলস বইটি প্রকাশ করেন নি।‘প্রিন্টার্স শিট’ বা ছাপাখানার খসড়া পাতা হিসাবে ১৮৪৬ সালের পর থেকে অপ্রকাশিত অবস্থায় সেগুলো পড়ে থাকে। প্রায় সাতশো পাতার বইয়ে তাঁরা বাক্য ধরে ধরে তাঁদের সমসাময়িক ব্রুনো বাউয়ের (১৮০৯ – ১৮৮২), মাক্স স্টির্নার (১৮০৬ – ১৮৫৬) এবং ‘ইয়ং হেগেলিয়ান’ নামে পরিচিত অন্যান্য জর্মান তরুণ দার্শনিকদের ‘ভাবাদর্শ’ সমালোচনা ও পর্যালোচনা করেছেন। পর্যালোচনা করেছেন লুদ্ভিগ ফয়েরবাখেরও। মার্কসের নিজের চিন্তার বিবর্তন বিচার করলে দেখা যায় ১৮৪৫-৪৬ সালের মধ্যে জর্মান ভাবাদর্শ’ সংক্রান্ত খসড়া তৈয়ারির মধ্য দিয়ে ফয়েরবাখের বস্তুবাদের সঙ্গে মার্কসের সুস্পষ্ট ছেদ ঘটে। এ বইটি শুধু 'ভাববাদ'-এর পর্যালোচনা তা নয়, একই সঙ্গে তথাকথিত 'বস্তুবাদ' থেকে বেরিয়ে আসার সূত্রও বটে। দর্শনের ইতিহাসে এর গুরুত্ব অপইসীম।

‘জর্মান ভাবাদর্শ’বইয়ের পাণ্ডুলিপির অনেকটাই ১৮৪৬ সালের মে মাসের দিকে ওয়েস্টফেলিয়ায় জোসেফ ভেডেমেয়ারের কাছে ছাপবার জন্য পাঠানো হয়। জুলিয়াস মেয়ের এবং রুডল্‌ফ রেমপেল নামের দুজন ব্যবসায়ী বইটি প্রকাশের টাকার যোগান দিতে রাজি ছিলেন। ইয়ং হেগেলিয়ানদের ‘খাঁটি’ সমাজতান্ত্রিক চিন্তার প্রতি আকৃষ্ট হওয়ার সুবাদে তাঁরা ভেবেছিলেন বইটি একই ধারার। কিন্তু যখন পাণ্ডুলিপি তাদের হাতে আসে তারা দেখলেন তথাকথিত ‘খাঁটি’ সমাজতন্ত্রী’দের মার্কস আর এঙ্গেলস সমর্থন দূরে থাকুক, আচ্ছাসে ধোলাইকরেছেন; তখন ‘জর্মান ভাবাদর্শ' প্রকাশের টাকা জোগান দেবার দরদটা উবে যায়।

তারপরও মার্কস ও এঙ্গেলস ১৮৪৬ থেকে ১৮৪৭ সাল ব্যাপী বইটি প্রকাশের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যান। তবে তাঁদের প্রয়াস কাজে আসেনি। এর একটা কারণ পুলিশের হয়রানি, অন্যদিকে প্রকাশকদের অনীহা। শেষমেষ প্রকাশের আশা তারা চিরতরে ত্যাগ করেন। তারপর দুইবন্ধুর মহাপরিশ্রমের এই ফসল মার্কসের ভাষায় ‘ইঁদুরের দন্তশক্তির বিচারের বিষয়’ হয়ে অবহেলায় পড়ে থাকে। আসলেই। যখন পাণ্ডুলিপি বহুবছর পর উদ্ধার হয় তখন তার বেশ কয়েকটি পাতা আর হরফ ইঁদুরের তীক্ষ্ণ দাঁতের গৌরব বয়ে বেড়াচ্ছিল। সেই খসড়া পাঠোদ্ধার করবার জন্য মাঝে মধ্যে সম্পাদকদের নিজেদের কথা জুড়তে হয়েছে। তবে মার্কস স্বীকার করতে ভোলেননি, ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ পাণ্ডুলিপি তৈরির মধ্য দিয়ে তাঁর চিন্তার চর্চা ইতিহাস পর্যালোচনার ক্ষেত্রে নিজের ভাবনা-চিন্তা পরিচ্ছন্ন করবার কাজে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

দর্শনের ইতিহাসের দিক থেকে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ মার্কসের এই আত্মোপলব্ধির জন্য খুবই তাৎপর্যময় হয়ে উঠেছে। এর কারন এই খসড়া বইটি দার্শনিক তর্কবিতর্কের জীবন্ত ইতিহাসের মতো। সেই সময় জার্মানির গুরুত্বপূর্ণ দর্শনিকদের জিজ্ঞাসা এবং মার্কসের সেইসব জিজ্ঞাসা মোকাবিলার ধরণ সম্পর্কে একটা ধারণা আমরা পাই। চিন্তাচর্চার এমনই একটা নজির আমরা দেখি যার মধ্যে নতুন বিপ্লবী চিন্তার আবির্ভাব কিভাবে ঘটছে তা আমাদের কাছে দৃশ্যমান হয়ে ওঠে। পরবর্তীতে কার্ল মার্কস নামক মনীষার আবির্ভাবের দার্শনিক অনিবার্যতা আমরা বুঝতে পারি।

মার্কস বা এঙ্গেলসের জীবদ্দশায় ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক পাণ্ডুলিপি আর প্রকাশিত হয় নি। এই খসড়ার কিছু অংশ ডেভিড রিয়াজিনভ (১৮৭০– ১৯৩৮) মার্কস-এঙ্গেলসের রচনা সংগ্রহের (Marx-Engels Gesamtausgabe) প্রথম খণ্ড মূল জর্মান ভাষায় ১৯২৭ সালে প্রকাশ করেন। স্টালিনের আমলে রিয়াজনভ ১৯৩১ সালে রাজনৈতিক নির্যাতনের মুখে গ্রেফতার হন এবং মার্কস-এঙ্গেলস-এর রচনা সংগ্রহ প্রকাশ করবার গুরু দায়িত্ব হারান। এ কাজে তাঁর চেয়ে যোগ্য ব্যক্তি সেই সময় রুশ কমিউনিস্ট পার্টি কিম্বা সোভিয়েত সরকারে কেউ ছিল না। কিন্তু তারপরও ১৯৩২ সালে মস্কোর মার্কস-এঙ্গেলস ইনস্টিটিউট থেকে প্রথম ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইয়ের সরকারি ভাষ্য প্রকাশিত হয়। কিন্তু ততোদিনে ৮৬ বছর পেরিয়ে গিয়েছে। তার মানে ‘কমিউনিজম’ বা ‘মার্কসবাদ’ নামে বিংশ শতাব্দির শুরুতে যে মতাদর্শ ও রাজনৈতিক ধারা গড়ে উঠেছিল সেখানে জর্মান দর্শন পর্যালোচনার এই গুরুত্বপূর্ণ দার্শনিক খসড়ার কোন ভূমিকা ছিল না। ইতোমধ্যে রুশ দেশে ১৯১৭ সালে বলশেভিক বিপ্লব ঘটে গিয়েছে। ভ্লাদিমির ইলিচ লেনিন (১৮৭০-১৯২৪) মারা যান ১৯২৪ সালে, ক্ষমতায় আসেন জোসেফ স্টালিন (১৯২২-১৯৫২)। রিয়াজিনভের বিরুদ্ধে কয়েক দফা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তোলার পর শেষমেষ ১৯৩৮ সালে তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। ‘জার্মান ভাবাদর্শ’ ছাড়াও রিয়াজিনভই প্রথম মার্কসের তরুণ বয়সের গুরুত্বপূর্ণ লেখা ‘অর্থনৈতিক ও দার্শনিক খসড়া ১৮৪৪’ এবং ‘হেগেলের অধিকার শাস্ত্রের পর্যালোচনা’ প্রকাশ করেন। রিয়াজনভের সম্পাদনায় ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ প্রকাশের পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে আরও তিনটি সংস্করণ প্রকাশিত হয়। এরপর দুই হাজার চার সাল পর্যন্ত প্রায় বিভিন্ন জনের বিভিন্ন সময়ের সম্পাদনায় বিভিন্ন ভাষায় প্রায় আঠারোটি সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছে।

মার্কস আর এঙ্গেলস ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নিয়ে লিখতে বিশেষ তাগিদ বোধ করেছিলেন কেন? ১৮৪৫ সালে একটি জর্মান জর্নালের (Wigand’s Vierteljahrsschrift) দ্বিতীয় খণ্ড খ্রিস্টিয়তত্ত্বের মর্মশাঁস নিয়ে লুদভিগ ফয়েরবাখের একটি লেখা ছাপে। শিরোনাম ছিল “অনন্য এবং তাঁর গুণাবলী’র আলোকে ‘খ্রিস্টধর্মের মর্মশাঁস’ বিষয়ে (Wesen des Christenthums in Beziehung auf den ‘Einzigen und sein Eigenthum’); একই জর্নালের তৃতীয় খণ্ডে ১৮৪৫ সালের নভেম্বরে ব্রুনো বাউয়েরের লুদভিগ ফয়েরবাখের বৈশিষ্ট্য (Charekteristik Ludwig Feuerbach) এবং মাক্স স্টির্নার-এর ‘স্টির্নারের সমালোচনা’(Recensenten Stirner) প্রকাশিত হয়। তৃতীয় খন্ড বেরোয় নভেম্বরের এক তারিখে, আর ঐ মাসেই মার্কস আর এঙ্গেলস ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ লেখা শুরু করেন। ১৮৪৬ সালের এপ্রিলে বইয়ের মূল অংশ শেষ হলেও প্রথম পরিচ্ছেদ, যা ‘ফয়েরবাখ পরিচ্ছদ’ নামে পরিচিত সেটা তারা লেখেন নি, কিম্বা পুরাপুরি লিখতে পারেন নি। পরে তাঁদের লিখিত অন্যান্য অংশ থেকে এক জায়গায় জড়ো করে প্রথম অংশ ‘ফয়েরবাখ পরিচ্ছদ’ তৈরি করা হয়।

দুটো খুবই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মনে রাখতে হবে: প্রথমত, ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক যে সংক্ষিপ্ত সংস্করণ পাওয়া যায় মার্কস এবং এঙ্গেলস ঠিক সেভাবেই বইটি লিখেছেন সেটা ঠিক নয়। যাঁরা সম্পাদনা করেছেন তাঁরাই ‘প্রথম পরিচ্ছদ বা ‘ফয়েরবাখ পরিচ্ছদ’তাদের মতো করে সাজিয়েছেন। মূল বই ছাড়াও মস্কো থেকে সংক্ষিপ্ত সংস্করণই ‘ফয়েরবাখ: বস্তুবাদী ও ভাববাদী দৃষ্টিভঙ্গির বিরোধ’(Feuerbach: Opposition of the Materialistic and Idealistic Outlook) শিরোনামে আলাদা ভাবে ছোট পুস্তিকা হিসাবে ছাপা হয়েছে। ‘বস্তুবাদ ও ভাববাদ দৃষ্টিভঙ্গীর বিরোধ’ এটা মার্কসের চিন্তার প্রতিফলন নয়, বরং কমিউনিস্ট পার্টির সরকারী শিরোনাম। বইয়ের মূল আলোচনায় ‘বস্তুবাদ ও ভাববাদ’ নামক কৃত্রিম এবং বিধিবদ্ধ সরকারি বিভাজন নাই।

দ্বিতীয়ত, ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইয়ের বিভিন্ন পরিচ্ছদ বা অধ্যায়ের শিরোনামও মার্কস কিম্বা এঙ্গেলসের দেওয়া নয়। সেই শিরোনামও দিয়েছেন বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সম্পাদকরা। ফলে বইয়ের শিরোনাম মূল বিষয় সম্পর্কে যে ধারণা আমাদের দিতে চেষ্টা করে সেটা মার্কসের চিন্তা বা ইচ্ছার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ এটা দাবি করা যায় না। শিরোনামের বিভ্রান্তি এড়াবার জন্য অতএব মূল লেখা পড়াই বাঞ্ছনীয়।

তবে মস্কো থেকে কমিউনিস্ট পার্টির অধীনে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক খসড়া পাণ্ডুলিপি যখন সরকারী বই হিসাবে ছাপা হয় সেটা মোটামুটি এঙ্গেলস-এর ধারণা অনুসরণ করে। এঙ্গেলসের দাবি ছিল তাঁদের দুই বন্ধুর এই প্রয়াস অসম্পূর্ণ, বিশেষত ফয়েরবাখ অংশ। ‘লুদভিগ ফয়েরবাখ ও চিরায়ত জর্মান দর্শনের অবসান’ বইতে এঙ্গেলস লিখছেন:

“যে অংশ ফয়েরবাখ নিয়ে লেখা তা অসম্পূর্ণ। যে অংশ সম্পূর্ণ সেখানে ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা ব্যাখ্যা করা হয়েছে, কিন্তু সেটা প্রমাণ করে অর্থনৈতিক ইতিহাস সম্পর্কে আমাদের ধারণা তখনও কতো অসম্পূর্ণ ছিল। ফয়েরবাখের চিন্তার কোন পর্যালোচনা করা হয় নি। এখন তা আর ব্যবহারের যোগ্য নয়। অন্যদিকে মার্কসের একটি পুরানা খসড়া খাতায় আমি ফয়েরবাখ সম্পর্কে ১১টি থিসিস পেয়েছি। সেটা এখানে যুক্ত করা হোল”(Engels, 1888, p. Foreword)।

এই অসম্পূর্ণতা কাটিয়ে তোলার জন্যই ১৮৮৮ সালে এঙ্গেলস ‘লুদভিগ ফয়েরবাখ ও চিরায়ত জর্মান দর্শনের অবসান’ পুস্তিকাটি রচনা করেন। বইটি বলাবাহুল্য, এঙ্গেলসের চিন্তা বোঝার জন্য গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু এটা ধরে নেওয়া ঠিক না যে এঙ্গেলস ফয়েরবাখ সম্পর্কে যে মূল্যায়ন করেছেন, মার্কসও হুবহু সেটাই পোষণ করতেন। জর্মান ভাবাদর্শ’ খসড়া রচনার কোথাও মার্কস ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারনা’ বা দর্শন কথাটা ব্যবহার করেন নি। তবে এঙ্গেলসের সূত্র ধরে সোভিয়েত কমিউনিস্ট পার্টি ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক খসড়াকে ইতিহাস সম্পর্কে একটি ‘সুসংবদ্ধ বস্তুবাদী ধারণা’(Materialist Conception of History) হিসাবে হাজির করতে শুরু করে। মস্কো থেকে প্রকাশিত ‘জর্মান ইডিওলজি’ বইয়ের ভূমিকায় দাবি করা হয়েছে, “জর্মান ভাবাদর্শ আসলে মার্কসবাদের প্রথম পরিণত কাজ’:

“ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’ কথাটা এই ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইতেই প্রথম অখণ্ড তত্ত্ব হিসাবে হাজির করা হয়েছে। পরবর্তীতে এঙ্গেলস বলেন এই তত্ত্ব সমাজ বিকাশের প্রকৃত নিয়ম উন্মোচন করে এবং সমাজ বিজ্ঞানের বৈপ্লবিক রূপান্তর সাধিত করে। মার্কসের বিশাল আবিষ্কারের এটি হচ্ছে এক নম্বরে, ( দ্বিতীয়টি হচ্ছে বাড়তি মূল্য তত্ত্ব) – যা সমাজতন্ত্রকে কাল্পনিক আকাঙ্ক্ষা (Utopia) থেকে বিজ্ঞানে রূপ দিয়েছে”

(Karl Marx, Frederick Engels, 1976, p. ১১)

মস্কোর প্রগ্রেস পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইয়ের ভূমিকায় এই দাবি করা হয়েছে। এটা খুবই সরলীকরণ। মানুষের ইতিহাসকে প্রকৃতি বিজ্ঞানের পদ্ধটি অনুসরণ করে ‘বস্তুবাদী’ কায়দায় ‘সমাজ বিকাশের প্রকৃত নিয়ম উন্মোচন’ করা যায়, এটা বিশেষ ভাবে এঙ্গেলসের দাবি। এই দাবি অবশ্য বিতর্কিত। ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নিয়ে আমাদের আগ্রহ বরং এই প্রকার অহেতুক দাবি থেকে বেরিয়ে এসে বোঝার চেষ্টা করা ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ কিভাবে দর্শন থেকে বেরিয়ে এসে দর্শন চর্চাকে বৈষয়ক জীবনের উৎপাদন ও পুনরুৎপাদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচার করবার পক্ষে যুক্তি হাজির করছে। মানুষের সঙ্গে তার বাইরের জগতের সম্বন্ধ বিচার এবং কিভাবে সেই সম্বন্ধ মানুষের চিন্তা নির্ণয়ে ভূমিকা রাখে জর্মান ভাবাদর্শ মূলত তারই পর্যালোচনা। এই তথ্য জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’, ‘ইউটোপীয় সমাজতন্ত্র’, ‘বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্র’ ইত্যাদি পরিভাষা মূলত এঙ্গেলসের, মার্কসের নয়। প্রথাগত কমিউনিস্ট আন্দোলন এই পরিভাষা এবং পরিভাষাগুলো কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা চিন্তার ওপরই গড়ে উঠেছে। মার্কসের চিন্তার সঙ্গে তার সঙ্গতি ও সাযুজ্য খুব কম।

marx

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইয়ের পুরা পাণ্ডুলিপি অক্ষত অবস্থায় পাওয়া যায়নি। হারিয়ে যাওয়া কিম্বা ক্ষতিগ্রস্ত পাতা সব ইঁদুরে কেটেছে বলা ভুল হবে! হয়তো রাজনৈতিক কারণে খোয়া যেতে পারে। শুরুতে যে সব পাতা খোয়া গিয়েছিল পরে তার কয়েকটি আবার পাওয়া গিয়েছে। তবে খসড়া পাণ্ডুলিপির যেসব জায়গা সম্পাদকদের অসম্পূর্ণ মনে হয়েছে, সেইসব জায়গাগুলো মার্কসের অন্য লেখার অংশ থেকে পূর্ণ করা হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে সম্পাদকরা নিজেদের কথাও জুড়ে দিয়েছেন। মার্কস এঙ্গেলস নিজেও খসড়া পাণ্ডুলিপি বিস্তর কাঁটাছেঁড়া করেছেন। বইটিকে কেন্দ্র করে রিয়াজনভের সংস্করণ প্রকাশের পর থেকেই রাজনৈতিক টানাপোড়েন শুরু হয়। সংস্করণ তৈরিতে মতাদর্শ ও রাজনীতি নানান ভাবে প্রভাব ফেলে। সম্প্রতি ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ প্রকাশনার রাজনৈতিক ইতিহাস নিয়ে গবেষণার কারনে এই টানাপোড়েন এখন আগের তুলনায় অনেক স্পষ্ট (Terrel Carver, Daniel Blank, 2014)।

হেগেল এবং ফয়েরবাখ সম্পর্কে মার্কস-এঙ্গেলস গুছিয়ে এবং বিস্তৃত ভাবে কোন পর্যালোচনা করেন নি, এই অভাব এঙ্গেলস স্বীকার করলেও সোভিয়েত কমিউনিস্ট পার্টি ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক খসড়াকে ইতিহাস সম্পর্কে একটি ‘সুসংবদ্ধ বস্তুবাদী ধারণা’ হিসাবেই প্রকাশ করে।

সোভিয়েট ইউনিয়নে স্টালিনের যুগ (১৯২৪-১৯৫৩) শেষ হবার পর থেকে আরও নির্ভরযোগ্য সংস্করণ প্রকাশের চেষ্টা শুরু হয়। স্টালিন লেনিনের মৃত্যুর পর ক্ষমতায় আসেন তবে বইটি যেভাবে বের হয় বিভিন্ন পরিচ্ছেদ ঠিক সেভাবে মার্কস আর এঙ্গেলস সাজান নি। সম্পাদকরাই সাজিয়েছেন। তবে তর্ক থাকলেও সাজানোর ব্যাপারে ধীরে ধীরে একটা মতৈক্য গড়ে ওঠে, তবে প্রথম পরিচ্ছেদ নিয়ে তর্কের জের থেকে যায়। তর্কের মূল কারণ হচ্ছে এভাবে বইয়ের শুরুতে একটি পরিচ্ছেদ তৈরির পরিকল্পনা মার্কস এবং এঙ্গেলসের ছিল না। এই পরিচ্ছেদের নাম দেওয়া হয়: ‘ Feuerbach: Opposition of the Materialistic and Idealistc Outlook’ অর্থাৎ ‘ফয়েরবাখ বস্তুবাদী এবং ভাবাদর্শিক দৃষ্টিভঙ্গীর বৈপরীত্য’। এই অংশ ‘ফয়েরবাখ পরিচ্ছেদ’ নামেও পরিচিত। আসলে ফয়েরবাখ এখানে পর্যালোচনার মূল বিষয় নন, এমনকি এই পরিচ্ছেদ এতো সরল অর্থে বস্তুবাদ ও ভাববাদের বৈপরীত্য নিয়েও নয়। এই তর্ক জারি থাকলেও প্রথম পরিচ্ছদকে পুরা বইয়ের সারার্থ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

তর্ক যাই থাকুক জর্মান ভাবাদর্শের পরিমণ্ডলে সম্পূর্ণ নতুন চিন্তার স্ফূরণ কিভাবে ঘটছে তার জীবন্ত নজির এই প্রথম পরিচ্ছদ। খসড়াতে মার্কস ও এঙ্গেলস বিস্তর কাটাকাটি করেছেন। কোথায় কাঁটাছেড়া করা হোল, নতুন কি তারা যোগ করলেন, কেন এবং কিভাবে করলেন ইত্যাদি বিষয়ের জন্যও তাঁদের খসড়া কাটাকাটি সমেত ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ নামক পাণ্ডুলিপির খসড়া এখন আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। বিশেষত জর্মান ভাবাদর্শের অভ্যন্তর থেকে মার্কস ও এঙ্গেলস উভয়েই কোথায় কিভাবে এক, কিন্তু আবার আলাদা ও ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গী নিয়ে বেরিয়ে আসছেন চিন্তার সেই সকল চিহ্নরেখা যারা অনুসরণ করতে চান কাটাছেঁড়া করা খসড়া তাঁদের জন্য সোনার খনির মতো। তবে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক খসড়া পাণ্ডুলিপির প্রধান গুরুত্ব হচ্ছে দার্শনিক পর্যালোচনা কিভাবে অর্থশাস্ত্র – বিশেষত মানুষের বৈষয়িক উৎপাদন ও পুনরুৎপাদন সংক্রান্ত জিজ্ঞাসার দিকে দর্শনের অভিমুখ নির্ধারণ করে দিচ্ছে তার চিহ্নগুলো সহজে শনাক্ত করার সুবিধা। মার্কসের কাছে দর্শন একই সঙ্গে অর্থশাস্ত্র; মানুষের চিন্তা, ধারণা, আদর্শ, কল্পনা, আকাঙ্ক্ষা ইত্যাদি বৈষয়িক জীবন উৎপাদন ও পুনরুৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত। মার্কস জর্মন ভাবাদর্শ – বিশেষত ‘ইয়ং হেগেলিয়ান’ নামে পরিচিত জর্মান দার্শনিকদের পর্যালোচনার মধ্য দিয়ে কিভাবে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলেন ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ সেটা সম্যক বোঝার একটু গুরুত্বপূর্ণ দলিল।

মস্কোর ইন্সটিটিউট অব মার্কসিজম এণ্ড লেনিনজম থেকে ১৯৬৫ সালে ‘জর্মন ভাবাদর্শ’ বেরোয়। এরই সংশোধিত সংস্করণ বেরোয় ১৯৭৬ সালে। এই সংস্করণের গুরুত্ব হচ্ছে যেখানে যেখানে কাঁটাছেড়া হয়েছে সেই জায়গাগুলো সুনির্দিষ্ট ভাবে উল্লেখ এবং দরকারী ক্ষেত্রগুলোতে সম্পাদকের গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য যুক্ত করা।পুরা দুটো ভলিউম বা খণ্ডে ভাগ করা হয়। প্রথম খণ্ডের নামকরণ করা হয়: The German Ideology: Critique of Modern German Philosophy According to its Representatives Feuerbach, B. Bauer and Stirner and of German Socialism According to its Various Prophets। অর্থাৎ‘জর্মানভাবাদর্শ: আধুনিক জার্মান দর্শন-তাদের প্রতিনিধি ফয়েরবাখ, বি,বাউয়ের এবং স্টিরনার এবং জর্মান সমাজতন্ত্রের নানান নবী পয়গম্বররা যেভাবে পেশ করেছেন-তারপর্যালোচনা’।

দ্বিতীয় খণ্ডের নামকরণ করা হয় Critique of German Socialism According to Its Various Prophets(Karl Marx, Frederick Engels, 1976)। এই খণ্ড True Socialism’ নামে পরিচিত; এঙ্গেলস ১৯৪৭ সালে এই অংশটি লেখেন। এছাড়াও মস্কোর প্রগ্রেস পাবলিশার্স ১৯৭২ সালে প্রথম পরিচ্ছদ বা ফয়েরবাখ অংশ (‘Feuerbach: Opposition of the Materialistic and Idealistc Outlook’) (Karl Marx & Frederick Engels, 1972)আলাদা ভাবে ছাপে। মোটামুটি সবার গ্রহণযোগ্য একটা সংস্করণ এখন দাঁড়িয়েছে।তবে সবসময়ই পাণ্ডুলিপির ভুমিকাংশ বা প্রথম পরিচ্ছদ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিস্তর তর্ক বিতর্ক হয়েছে। সম্প্রতি ইংরেজি ভাষায় কাঁটাছেড়া সহ আরেকটি নতুন সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছে (Terrel Carver, Daniel Blank, 2014b)।

জর্মন ভাবাদর্শ মার্কস-এঙ্গেলস কালেক্টেড ওয়ার্কসের পঞ্চম খণ্ড হিসাবেও প্রকাশিত হয় (Karl Marx, Frederick Engels, 2010)। মস্কোর সংস্করণে ‘ফয়েরবাখ সংক্রান্ত থিসিস’-এর দুটো পাঠ অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। একটি মার্কসের মূল খসড়া আর অন্যটি এঙ্গেলসের সম্পাদনায় কিছুটা সম্পাদিত হয়ে যেভাবে প্রকাশিত হয়েছিল সেটি।

জর্মান ভাবাদর্শ,বলাবাহুল্য,কার্লমার্কস ও ফ্রেডরিখ এঙ্গেলসের যৌথ রচনা। মার্কস এবং এঙ্গেলসের নাম আমরা একসঙ্গে উচ্চারণ করি। তাঁদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক নিছকই ব্যক্তিগত ছিলনা। সেই সম্পর্কের বুদ্ধিবৃত্তিক ও রাজনৈতিক দিকও ছিল গভীর। সেখানে চিন্তার ঐক্য যেমন ছিল পার্থক্যও ছিল।‘জর্মান ভাবাদর্শ’ রচনার ক্ষেত্রে কার্ল মার্কসের চিন্তা প্রধান ভূমিকা রেখেছে।

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইটির খসড়া করতে গিয়ে মার্কস নানা জায়গায় কাটা ছেঁড়া করেছেন এবং খসড়া এবং খসড়া খাতার কোণায় অনেক টুকরা বাক্য বা শব্দ নোট করে রেখেছিলেন।কেন তিনি কাঁটা ছেড়া করলেন অনেক ক্ষেত্রে সেটা বুঝতে অসুবিধা হয়না। কিন্তু খুব সতর্কভাবে পাঠ না করলে গুরুত্বপূর্ণ কাটাছেঁড়ার তাৎপর্য ধরতে পারা খুবই কঠিন হয়ে পড়ে।‘জর্মান ভাবদর্শ’এই ধরনের কাঁটাছেঁড়া ও মার্জিনে মন্তব্য সহই ছাড়া হয়েছে এবং ইংরেজি অনুবাদেও তা মোটামুটি অরক্ষিত রয়েছে। মার্কসকে যাঁরা নতুন করে পাঠ করতে চাইছেন এতে তাঁদের দারুন সুবিধা হয়েছে অবশ্যই। বিশেষত পাশ্চাত্য দর্শনের সংকটগুলো চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে মার্কসের নিজের সঙ্গে বোঝাপড়ার মুশকিল ও অগ্রগতি দুটোই আমরা ধরতে পারি। তাঁরআগের-বিশেষত হেগেল এবং‘ওল্ড’বা পুরানা হেগেলিয়ানরা যেমন, তেমনি ‘ইয়ং হেগেলিয়ান নামে খ্যাত হেগেলের বিরুদ্ধবাদীদের মার্কস কিভাবে মোকাবিলা করেছেন সেইদিকগুলো বোঝার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইশারা মার্কসের খসড়া খাতাগুলোতে আমরা খুঁজে পাই। ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ সেইদিক থেকে চিন্তার রাজ্যে সোনার খনির মতো। জর্মান দর্শন বা ভাবাদর্শিতার কিম্বা সামগ্রিকভাবে পাশ্চাত্য দর্শন পর্যালোচনা করতে গিয়ে মার্কস বিপ্লবী চিন্তারঅভিমুখ ও পদ্ধতিকে যেদিকে সন্নিবেশিত করেছেন বিপ্লবী রাজনীতি পুনর্গঠনের জন্য সেই মোকাবিলার তাৎপর্য অসামান্য।

জর্মান সমাজতন্ত্রীদের মার্কস ও এঙ্গেলস সমাজতন্ত্রী ‘পয়গম্বর’ বলে তীব্র ঠাট্টা করেছেন। তারা নিজেদের ‘সমাজতন্ত্রী’ দাবি করলেও ছাড় দেন নি। এমত পয়গম্বর আমরা বাংলাদেশেও দেখি। তাদের অত্যাচার আমরা সহ্যও করি। তফাত হচ্ছে ইয়ং হেগেলিয়ানদের অনেকে চিন্তার ক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন, কিন্তু বাংলাদেশী ‘সমাজতন্ত্রী’দের অবদান দূরের কথা, বরং সমাজতান্ত্রিক চিন্তার বিকাশের ক্ষেত্রে তারা বড় বাধা হয়ে আছেন। তবে এতোটুকু উপলব্ধি আপাতত যথেষ্ট যে ‘সমাজতন্ত্র’বললেই যে সেটা মার্কস আর এঙ্গেলসের ‘সমাজতন্ত্র’ নয়-এই ধারণা স্পষ্ট করা।

মার্কস পাঠের প্রথম শিক্ষাই কিন্তু ঠিক এটাই। বাংলাদেশে আমরা এই দিকটা আজো স্পষ্ট করে তুলতে পারিনি।ফলে কেউ নিজেকে ‘সমাজতন্ত্রী’ দাবি করলেও আমরা ভেবে দেখিনা সেই দাবির সঙ্গে মার্কসের চিন্তার আদৌ কোন সঙ্গতি আছে কিনা। জর্মান ভাবাদর্শীরাও সমাজতন্ত্রের কথা বলতেন, কিন্তু তাদের সঙ্গে মার্কসের মৌলিক ও গুণগত পার্থক্য বিপুল। সেই পার্থক্য কোথায় কিভাবে সূচিত হয়েছে সেটা বুঝতে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ অবশ্যপাঠ্য একটি গ্রন্থ।

চিন্তার ভূত ও জর্মান ভাবাদর্শ

মার্কসের চিন্তার সরলীকরণ এবং বস্তুবাদ/ভাববাদের বাইনারি থেকে মুক্ত হতে হলে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’-এর সারার্থ সম্পর্ক প্রচলিত কমিউনিস্ট পার্টির দাবি এবং খসড়া পাণ্ডুলিপি নিয়ে রাজনীতি সম্পর্কে সম্যক ধারণা থাকা দরকার। ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’ কথাটিও বিভ্রান্তিকর যদি আমরা মনে না রাখি, যে-কোন ধারণাই ভূত বা ভুতুড়ে হয়ে যেতে পারে যদি জাগতিক বাস্তবতার সঙ্গে ধারণার সম্পর্ককে আমরা বিচ্ছিন্ন করি। এই ব্যাপারে স্পষ্ট থাকলে ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ রচনার উদ্দেশ্য বোঝা খুবই সহজ। শুরুতেই বলা হচ্ছে:

“এ যাবতকাল মানুষ নিজে কী, আর তার কীই বা হওয়া উচিত সেইসব নিয়ে নিজের জন্য ক্রমাগত মিথ্যা ধারণা বানিয়েছে। আল্লাহ সম্পর্কে, সাধারণ মানুষ সম্পর্কে তাদের ধ্যানধারণা দিয়ে তারা তাদের সম্পর্ক সাজিয়েছে। তাদের মগজের ভূত এখন তাদের নাগালের বাইরে বেরিয়ে পড়েছে। (চিন্তার) স্রষ্টারা তাদের নিজের সৃষ্টির সামনে নতজানু হয়ে রয়েছে”।

(Karl Marx, Frederick Engels, 1976, p. ২৯)

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ লিখবার উদ্দেশ্য তাহলে ‘মগজের ভূত’ থেকে মানুষকে মুক্ত করা। মানুষকে তার নিজের চিন্তা থেকে জাত ধ্যানধারণার অধীনস্থতা থেকে মুক্ত করে চিন্তাকে মানুষের নাগালের মধ্যে আনা। মানুষের পর্যালোচনার ক্ষমতাকে আবার সজীব ও সক্রিয় করে তোলা। মানুষের নানান মত ও ধ্যান ধারণা পর্যালোচনার মধ্য দিয়ে মানুষ নিজে যদি নিজের চিন্তার বাস্তব বৈষয়িক শর্ত ও কার্যকারণ বুঝতে পারে তবেই তার মগজের ভূত তাড়ানো হয়তো সম্ভব। কিন্তু পুরানা চিন্তার ভূতের জায়গায় আরেক প্রকার নতুন চিন্তার ভূত প্রতিস্থাপন করলে ভূত যায় না। শুধু এক ভূতের জায়গায় আরেক ভূত মাথায় বাসা বাঁধে।

তাহলে কি করতে হবে? দরকার হচ্ছে মানুষ যখন কোন কিছু ভাবে তখন সেই ভাবনার বাস্তব বা জাগতিক কারন খুঁজে বের করা। চিন্তা হাওয়ায় বাস করে না, তার জাগতিক অস্তিত্ব আছে। অর্হাৎ রক্তমাংস্র মানুষের মধ্যেই চিন্তার বাস। তাহলে চিন্তাকে শুধু চিন্তা দিয়ে বদলানো যায় না, বরং যে জাগতিক বাস্তবতা বিশেষ প্রকার চিন্তার জন্ম দেয় সেই জগতকে পর্যালোচনা ও বোঝাই প্রাথমিক কাজ। মানুষ চিন্তার মধ্যে বাস করে না, বরং বাস করে বাস্তব জগতে। যে কারণে চিন্তার পুরানা ধারনার জায়গায় নতুন ধারণ বসিয়ে দিলেই ভূত যায় না। বরং চিন্তার সঙ্গে বাস্তব জগতের সম্বন্ধ বিচারই মূল কথা। সেই সম্বন্ধ বিচার করবার সক্ষমতা অর্জন করলেই মানুষ চিন্তাকে ভূত হয়ে যাবার বিপদ থেকে রক্ষা করতে পারে, চিন্তা নিজেকে নিজের নাগালে রাখতে পারে।

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ তাহলে মানুষের নিজের চিন্তা নিজের নাগালে রাখবার পদ্ধতি আবিষ্কারের কাজ। সেই কাজ মার্কস আর এঙ্গেলসই শুধু করতে চেয়েছেন তা নয়। ইয়ং হেগেলিয়ান নামে পরিচিত অন্যান্যরাও করছিলেন। তারা নানান সমাধান দিচ্ছিলেন। ‘এই অদ্ভূত ঘোর, ভাবনা, গোঁড়ামি, হাওয়াই ভূতপেত্নির জোয়ালে আটকে পড়ে ঘুরপাক খাওয়া অবস্থা থেকে’ মানুষকে মুক্ত করার কথা তারাও বলছিলো। ইয়ং হেগেলিয়ানরা ‘চিন্তার বিধিবদ্ধ শাসন’-এর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিল। এই বিদ্রোহের গুরুত্ব আছে। এই বিদ্রোহ আদতে হেগেলের বিরুদ্ধেও, কারন হেগেলের হাতেই চিন্তার অসামান্য শক্তির রূপ দর্শনের ইতিহাসে প্রথম স্পষ্ট প্রত্যক্ষ হতে শুরু করে। লুদভিগ ফয়েরবাখের সমাধান ছিল, ‘মানুষ আসলে কী, সে সম্পর্কে ঠিক চিন্তাটি তাদের কল্পনার জায়গায় বিনিময় করা’। ধর্মতত্ত্ব ও দর্শন থেকে মানুষকে মুক্ত করবার জন্য ফয়েরবাখ সমাধান হিসাবে মানুষের চিরায়ত সত্তার ধারণা (eesence of man) হাজির করেছিলেন। ‘মানুষ’ সম্পর্কে ঠিক চিন্তা মাথায় ঢুকাতে পারলেই ধর্মতত্ত্ব এবং দর্শনের ভূত মানুষের মাথা থেকে নেমে যাবে – এটাই ছিল ফয়েরবাখের দাবি। ব্রুনো বাউয়ের মানুষের মগজের ভূতের প্রতি একটা ‘পর্যালোচনামূলক দৃষ্টিভঙ্গী’ গ্রহণ করে কর্তব্য সারতে চেয়েছেন। মাক্স স্টির্নারের সমাধান হোল মানুষের মাথা থেকে এইসব চিন্তা বার করে দিলেই বুঝি ‘বিদ্যমান বাস্তবতা ধূলিসাৎ হবে’। তরুণ মার্কস বুঝে গিয়েছিলেন, নিছক চিন্তার জায়গায় চিন্তাকে স্থাপন করার অর্থ ভূতের বেগার খেটে যাওয়া। এখান থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

মার্কস-এঙ্গেলসের তরুণ বয়সের এই রচনাটির বড় অংশই ইয়ং হেগেলিয়ানদের সমালোচনা। ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ মগজের ভূত তাড়ানোর ক্ষেত্রে কেন ইয়ং হেগেলিয়ানদের সঙ্গে মোটেও একমত নয়, তারই একটা দলিল। সেভাবেই মার্কস-এঙ্গেলসের তরুণ বয়সের এই খসড়া পড়তে হবে। হেগেল এবং হেগেলের তরুণ সমালোচকদের চিন্তা থেকে তারা --- বিশেষ ভাবে মার্কস -- কিভাবে বেরিয়ে এসে নতুন ভাবে ভাবতে শুরু করেছেন সেই দিকটা বোঝাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ বইতেই প্রথম অখণ্ড তত্ত্ব হিসাবে হাজির করা হয়েছে’ -- এই দাবিকে সেই সময়ের সোভিয়েত কমিউনিস্ট পার্টি এবং সোভিয়েত রাষ্ট্রের রাজনৈতিক স্বার্থ থেকে আলাদা করে বিচার করবার সুযোগ নাই। কমিউনিস্ট পার্টির বা সোভিয়েট সরকারী ভাষ্যের সঙ্গে কারো চিন্তা সঙ্গতিপূর্ণ না হলে তাকে ‘ভাববাদী’, ‘বুর্জোয়া’ বা ‘প্রতিক্রিয়াশীল’ হিসাবে নাকচ করবার রাজনৈতিক মানদণ্ড হিসাবে এই ধারনাটির ব্যবহার হয়েছে। এখনও হয়।

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ ছিল মূলত হেগেলের সমালোচকদের সমালোচনা। তরুন বয়সে মার্কসও হেগেলের তুমুল সমালোচনা করেছেন। কিন্তু সেটা হেগেলকে ‘ভাববাদী’ বলে নাকচ করবার জন্য নয়, বরং হেগেলের চিন্তার প্রকরণ বোঝা ও সদর্থে আত্মস্থ করার দিকেই তিনি নিষ্ঠ ছিলেন। মার্কস হেগেলে থেমে থাকেন নি, হেগেলের ক্যারিকেচার হন নি; সর্বোপরী জর্মান দর্শন – অর্থাৎ সজীব ও সক্রিয় চিন্তার ইতিহাসকে হেগেল যে পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন, মার্কস তার আগের অবস্থায় ফিরে যান নি। মার্কস এতোটুকুই শুধু বারবার দাবি করেছেন যে হেগেলের চিন্তার মধ্যে যে দিকটা প্রকরণ এবং প্রকাশভঙ্গীর কারনে ধোঁয়াশা -- তিনি তা পরিচ্ছন্ন করে তুলেছেন। একে তিনি বলেছেন, হেগেলকে সোজা পায়ে দাঁড় করিয়ে দেওয়া। তরুণ বয়সে মার্কস হেগেলকে সমালোচনা করেছিলেন, এতে কোন সন্দেহ নাই; কিন্তু সেই মার্কসই পরিণত বয়সে হেগেল সম্পর্কে লিখছেন:

“হেগেল যেসময় ফ্যাশান ছিলেন সেই তিরিশ বছর আগে আমি তাঁর দ্বান্দ্বিক চিন্তার ধোঁয়াশা দিকের সমালোচনা করেছি।কিন্তু আমি ঠিক যখন 'পুঁজি' প্রথম খণ্ড নিয়ে কাজ করছি তখন দেখছি, রসবোধের অভাবের অসুখে ভোগা, মাথা গরম ও মাঝারি মাপের লোকগুলা এখন লেসিংসের সময় মোসেস মেন্ডেলসন যেমন স্পিনোজাকে মনে করত 'মৃত কুকুর' তারাও -- জর্মান শিক্ষিত মহলে বড় বড় কথা বলা লোকগুলো - হেগেলের প্রতি তেমন আচরণ করে যাচ্ছে এবং পুলকিত বোধ করছে। আমি অতএব খোলামেলা ঘোষণা করতে চাই যে আমি সেই মহাশক্তিশালী চিন্তকের ছাত্র। এমনকি মূল্যতত্ত্ব পরিচ্ছেদের এখানে সেখানে যে প্রকাশভঙ্গি নিয়ে বাক্যগিরি করেছি সেটাও একান্তই তাঁর”।

(Marx, 1977, pp. ১০২-১০৩)

হেগেলের প্রতি মার্কসের বিচার পরিষ্কার।

এক. পরিণত বয়সে ‘পুঁজি’ প্রথম খণ্ড লেখার সময় ঘোষণা দিয়েই মার্কস বলছেন, তিনি হেগেলরই ছাত্র; তাহলে ভাববাদী বলে হেগেলকে ধরো তক্তা মারো পেরেক জাতীয় চিন্তা দিয়ে নাকচ করলে মার্কসকে বোঝা যাবে না। মার্কসকে হেগেলপন্থি বানালেও হবে না। বরং মার্কস কিভাবে হেগেলসহ জর্মান ভাবাদর্শ থেকে বেরিয়ে এসে চিন্তা ও চিন্তার জাগতিক বাস্তবতার সঙ্গে সম্বন্ধ বিচারের নতুন ক্ষেত্র আবিষ্কার করছেন সেই দিকে নজর রাখাই প্রথম ও প্রধান কাজ

দুই. হেগেলের সঙ্গে তাঁর পার্থক্যের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা প্রকরণ ও প্রকাশভঙ্গির। কারণ হেগেলের চিন্তা পদ্ধতি এক প্রকার ধোঁয়াশা বা রহস্যময়তার মধ্যে আব্ররতিত হয়, ফলে তা অপরিচ্ছন্নতা ও অস্পষতাতায় আচ্ছন্ন থাকে। মার্কস সেই ধোঁয়াশা সাফ করতে চান। সেই অস্পষ্টতা ভেদ করে তাঁর চিন্তার সারপদার্থ বুঝে নেওয়াই আদত কাজ; মার্কসের ভাষায় সেটা হচ্ছে হেগেলকে সোজা পায়ে মাথা ওপরে রেখে সটান হাঁটানো।

তিন. ঠিক যে পা নীচে মাথা ওপরে সোজা পায়ে হাঁটানো কথাটা প্রতীকী। এর দ্বারা মার্কস কী বুঝিয়েছেন সেটা নিয়ে বিভিন্ন তর্ক আছে। যদি তাকে চিন্তার এক প্রকার ভূতের জায়গায় আরেক প্রকার ভূত অধিষ্ঠিত করবার প্রক্রিয়া না হয় তাহলে বুঝতে হবে মার্কসের এই প্রতীক চিন্তা ও বাস্তবতার সম্বন্ধ বিচারের প্রতি নিবদ্ধ। অর্হাৎ হেগেলের প্রক্রিয়া ও পদ্ধতিকে ধোঁয়াশা থেকে মুক্ত করে চিন্তা ও বাস্তবতার সম্বন্ধ বিচারের কাজে নিয়োগ করা। দ

তাহলে এটা পরিষ্কার থাকা দরকার যে মার্কসের সঙ্গে হেগেলের দ্বন্দ্ব আর যাই হোক ভাববাদ বনাম বস্তুবাদের দ্বন্দ্ব নয়, কিম্বা ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’ বলতে প্রাচীন মার্কসবাদী পার্টি বা প্রাক্তন সোভিয়েত রাশিয়ার সরকারী ভাষ্য হিসাবে কমিউনিস্টরা যা শিখেছেন এবং এখনও যা আওড়াচ্ছেন তাও নয়। সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং পূর্ব ইউরোপে ‘সমাজতান্ত্রিক’ রাষ্ট্রের পতন, কিম্বা চিনের পুঁজিতান্ত্রিক পথ পরিগ্রহণের ফলে হেগেল কিম্বা মার্কসের চিন্তার প্রাসঙ্গিকতা আগের চেয়ে বরং দ্বিগুণ হয়েছে। অন্যদিকে সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন ব্যর্থ হয়েছে এই প্রপাগাণ্ডা বিশ্বাস করবারও কোন যুক্তি নাই। বরং সফলতা এবং ব্যর্থতার প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার কারণে চিন্তার ভুল শোধরানো এখন আগের চেয়ে অনেক সহজ হয়েছে।

প্রকৃতি বিজ্ঞান, এঙ্গেলস ও মার্কস

কিন্তু বড়সড় আরেকটি সমস্যা রয়ে গিয়েছে। জর্মান দর্শনের ভাবাদর্শিক ধারা থেকে মুক্ত করবার সংকল্প বাস্তবায়িত করতে গিয়ে মার্কস ও এঙ্গেলস প্রকৃতি বিজ্ঞানের পদ্ধতির প্রতি অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিলেন। যার পরিণতি অনায়াসেই শনাক্ত করা যায়। দেখা যায় ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ব্যাখ্যা’ কথাটার অর্থ হয়ে উঠেছিল সমাজ ও ইতিহাসকে প্রকৃতি বিজ্ঞানের সূত্র অনুযায়ী ব্যাখ্যা করা। চার্লস ডারউইন যেভাবে প্রকৃতির বিবর্তন ব্যাখ্যা করেছেন মার্কসও সেই পদ্ধতির প্রতি আকর্ষণ বোধ করেছিলেন। চার্লস ডারউইনের ‘প্রজাতির উৎপত্তি’ বইটি ১৮৫৯ সালের ২৪ নভেম্বর প্রকাশিত হবার সঙ্গেই সঙ্গেই মার্কস এবং এঙ্গেলস ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্বে আগ্রহী হয়ে ওঠেন এবং শুরুর দিকে নির্বিচারে প্রকৃতির বিবর্তন বিচারের পদ্ধতি সমাজ ও ইতিহাস বিচারের পদ্ধতি হিসাবে গ্রহণও করেন। ডারউইনের বইয়ের পুরা শিরোনাম ছিল, “On the Origin of Species by Means of Natural selection or the Preservation of the Favoured Races in the Struggle for Life” (প্রাকৃতিক নির্বাচনের মাধ্যমে প্রজাতির উৎপত্তি অথবা জীবন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে পছন্দের প্রজাতিসমূহের সংরক্ষণ)। শ্রেণি সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ইতিহাসের বিকাশ আর বেঁচে থাকার লড়াই-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন প্রজাতির প্রকৃতির মধ্যে টিকে থাকা – এই দুইয়ের মধ্যে হয়তো তাঁরা মিল খুঁজছিলেন। দ্বিতীয়ত মানুষের সৃষ্টি বা উদ্ভবকে পারলৌকিক বা ধর্মতাত্ত্বিক কারণ দিয়ে ব্যাখ্যা না করে প্রাকৃতিক লড়াই-সংগ্রামের পরিণতি হিসাবে বিচার করাকে তারা তাদের পদ্ধতির সঙ্গে অধিক সঙ্গতিপরায়ন গণ্য করেছেন।

নভেম্বর ১৮৫৯ সালে ‘প্রজাতির উৎপত্তি’ বইটি বেরুবার পরপরই এঙ্গেলস ডারউইন সম্পর্কে মার্কসকে লিখছেন, “প্রসঙ্গক্রমে বলি ডারউইন, যাঁকে আমি এখন পড়ছি, এক্কেবারে দুর্দান্ত। উদ্দেশ্যবাদী চিন্তার যে দিকটা নস্যাৎ করার দরকার ছিল তা হয়ে গিয়েছি”। জগত সৃষ্টি একটা পরম কারণ আছে, কিম্বা কোন একটা উদ্দেশ্য বা পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্যই জগতের সৃষ্টি – ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্ব তাকে নাকচ করে, এঙ্গেলস এতে দারুন অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন।

এটা বলা ভুল হবে না যে একটা একটা পর্যায় অবধি উভয়েই অনুমান করেছেন যে বস্তু বা বাস্তব জগতকে যেভাবে ব্যাখ্যা করা যায় মানুষ, সমাজ ও ইতিহাসকেও সেই রকম বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে বিশ্লেষণ ও বোঝা সম্ভব। কিন্তু যে মানুষ সমাজ ও ইতিহাসে ‘কর্তা’ তাকে স্রেফ নিশ্চেতন বস্তুতে পর্যবসিত করা যায় না। সেটা করা যায় না কেন? করা যায় না শুধু মানুষের চেতনা ও সজ্ঞানতার চরিত্র ও বৈশিষ্টের কারণে নয়, বরং সকর্মক সত্তা হিসাবে মানুষ জগতে যে কাজ সম্পাদন করে তাকে স্রেফ প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া হিসাবে বুঝতে চাইলেও মুশকিল ঘটে। মানুষ জীব বটে, এবং তার এনাটমি বা ফিজিওলজি নিয়ে বিজ্ঞান বিস্তর গবেষণা করতে পারে, কিন্তু মানুষ কিভাবে তার ইচ্ছা, বাসনা ও সংকল্পের দ্বারা প্রণোদিত হয়ে সমাজে ও ইতিহাসে ভূমিকা রাখে তাকে প্রকৃতি বিজ্ঞানের যান্ত্রিক পদ্ধতি দিয়ে বোঝা কঠিন।

মার্কসের পরিণত রচনা বরং ‘পুঁজি’; অথচ যার মাত্র প্রথম খণ্ড তিনি নিজে বের করতে পেরেছেন। বাকি দুই খণ্ড এঙ্গেলস তাঁর খসড়া খাতা থেকে সাজিয়ে মার্কসের মৃত্যুর পর প্রকাশ করেছেন। এরপর তাঁর প্রধান আবিষ্কার হচ্ছে ‘বাড়তি মূল্য’ সংক্রান্ত নোট। কিন্তু সেই ক্ষেত্রে ‘বাড়তি মূল্য তত্ত্ব’কে তত্ত্ব হিসাবে মূল্য দিতে গিয়ে ‘থিওরি অব সারপ্লাস ভ্যালু’ নামে প্রকাশিত অসাধারণ কাজের গুরুত্বকে গৌণ করে ফেলা হয়। কিভাবে একটি সদ্য গড়ে ওঠা শাস্ত্র – অর্থাৎ অর্থশাস্ত্রের বিভিন্ন আনকোরা নতুন ধারণা মার্কস পর্যালোচনা করছেন সেই আসল কাজের গুরুত্ব হারিয়ে যায়। অথচ দর্শনের দিক থেকে বিচার করলে ‘থিওরি অব সারপ্লাস ভ্যালু’‘ক্যাপিটাল’-এর মতোই খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

‘জর্মান ভাবাদর্শ’ নামক খসড়ার গুরুত্ব হচ্ছে দর্শন থেকে বেরিয়ে কেন দর্শনকে অর্থশাস্ত্রের বিচারে প্রবৃত্ত হতে হবে তার পক্ষে অত্যন্ত জোরালো প্রস্তাবনা। চিন্তার ইতিহাসে মার্কসের কম বয়সের অন্যান্য রচনার মতোই ‘‘জর্মান ভাবাদর্শ’ যেমন দীর্ঘস্থায়ী ছাপ ফেলে গিয়েছে, তেমনি এখন বাস্তবের সমাজতন্ত্র কায়েমের রাজনৈতিক পরীক্ষা নিরীক্ষা ব্যর্থ হবার পর আগের চেয়ে আরো কয়েকগুণ বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

‘লুদভিগ ফয়েরবাখ ও চিরায়ত জর্মান দর্শনের অবসান’ বইতে এঙ্গেলস বলছেন:

“প্রায় চল্লিশ বছর পার হয়ে গিয়েছে এবং মার্কসও গত হয়েছেন, আমাদের দুই জনের কেউই এই বিষয়ে প্রত্যাবর্তনের কোন সুযোগ পাই নি। বিভিন্ন জায়গায় হেগেলের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক নিয়ে আমরা বিচ্ছিন্ন মন্তব্য করেছি, কিন্তু কোথাও গুছিয়ে ও সবিস্তারে করতে পারি নি। যিনি আর যাই হোক নানান দিক থেকে হেগেলের দর্শনের সঙ্গে আমাদের অব্যবহিত সম্পর্কের যিনি সূত্র, সেই ফয়েরবাখেও আমরা কখনই আর ফিরে যাই নি।

ইতোমধ্যে জর্মান ও ইউরোপীয় সীমান্তের অনেক বাইরেও বিভিন্ন ভাষায় ও সাহিত্যে মার্কসীয় বিশ্ব দৃষ্টিভঙ্গীর প্রতিনিধি পাওয়া যাচ্ছে, অন্যদিকে বিদেশে চিরায়ত জর্মান দর্শনের পুনর্জন্ম ঘটছে, বিশেষত ইংলণ্ড এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়ায়; এমনকি জর্মানিতেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও এলাপাথাড়ি ভাবে গরিবের জগাখিচুড়ি হিসাবে যা পরিবেশন করা হচ্ছে তার প্রতি মানুষ ত্যাক্তবিরক্ত হয়ে উঠেছে মনে হয়।

এই পরিপ্রেক্ষিতে হেগেলের দর্শনের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ব্যাখ্যা করতে কিভাবে তাঁর প্রতি আমরা নিবিষ্ট হয়েছিলাম এবং আবার আলাদা হয়েছি তার একটি গুছানো ও সংক্ষিপ্ত ব্যাখার দরকার সেটা ক্রমে ক্রমে বেশী বেশি করে মনে হচ্ছে। একই ভাবে জর্মানির ‘স্টর্ম এন্ড স্ট্রেস’ -এর কালে আমরা হেগেলের পরের দার্শনিক ফয়েরবাখ দ্বারা কিভাবে প্রভাবিত হয়েছিলাম তার একটি পূর্ণ স্বীকৃতি জ্ঞাপন আমার কাছে মনে হয়েছে তাঁর প্রতি সম্মান প্রদর্শনের ঋণ পরিশোধের দায়ে আবদ্ধ থাকা”।

ফয়েরবাখ সম্পর্কে এঙ্গেলস ১৮৬৬ সালে কেন নতুন ভাবে লিখলেন তার যুক্তি তুলে ধরেছেন। ডেনমার্কের সমাজবিদ ও দার্শনিক কার্ল নিকোলাই স্টার্কে (১৮৫৮-১৯২৬) লুদভিগ ফয়েরবাখের ওপর একটি বই লেখেন, যেটি ১৮৮৫ সালা ছাপা হয়। এই বইটির পরিপ্রেক্ষিতেই এঙ্গেলস ফয়েরবাখের ওপর তাঁর বইটি লেখেন।

ফয়েরবাখ এঙ্গেলসকে যেভাবে মূল্যায়ন করেছেন ‘মার্কসবাদী’ চিন্তা ও কমিউনিস্ট রাজনীতির ক্ষেত্রে সেটাই নির্ধারক হয়েছে। দর্শন ও রাজনীতি উভয় ইতিহাসের দিক থেকে এই তথ্য গুরুত্বপূর্ণ। মার্কস-এঙ্গেলসের নামে গড়ে উঠলেও শুরু থেকেই মার্কসবাদ বা কমিউনিস্ট রাজনীতি এঙ্গেলসের চিন্তার দ্বারাই প্রভাবিত ছিল। সেই প্রভাবের চরিত্র ও বৈশিষ্ট্য বুঝতে হলে এঙ্গেলসকে মার্কসের চিন্তা থেকে ভিন্ন ও স্বাধীন ভাবে বোঝার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। বুঝতে হবে সফলতা ও ব্যর্থতা সমেত কমিউনিস্ট আন্দোলনের ইতিহাসের পরিপ্রেক্ষিতে। ধরে নেওয়া উচিত নয় যে মার্কস এবং এঙ্গেলসের চিন্তা সকল ক্ষেত্রে সমার্থক। উভয়কে তাদের নিজস্ব চিন্তার বৈশিষ্ট্য দিয়ে বোঝার উদ্দেশ্য মার্কসের বিপরীতে এঙ্গেলসকে স্থাপন করা নয়, কিম্বা মার্কসকে এঙ্গেলসের পালটা হিসাবেও নয়। বরং বোঝা দরকার জর্মান ভাবাদর্শের চরম বিকাশের মূহূর্তে এঙ্গেলসের চিন্তার আধিপত্য সম্ভবত অনিবার্য ছিল। ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী দর্শন’ কেন এবং কিভাবে দানা বাঁধল সেটা বোঝা দরকার। বোঝা দরকার কিভাবে ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী দর্শন’ বিশেষ ধরণের কমিউনিস্ট রাজনীতির জন্ম দিল। কেন কমিউনিস্ট আন্দোলন – মতাদর্শিক ও রাজনৈতিক ভাবে যে বিশেষ ঐতিহাসিক রূপ পরিগ্রহণ করেছিল তা টিকল না। এবং তা আবাব্র প্রত্যাবর্তন করবে না। এই দিকগুলো আরও ভালভাবে বাস্তবের ঘটনাঘটন আমাদের বোঝা দরকার। এঙ্গেলস আর মার্কসের চিন্তার পার্থক্য বোঝা দরকার পুরানা কমিউনিজমকে শুধু বাতিল করবার জন্য নয়, বরং কমিউনিজম যে মোটেও একটি বাতিল চিন্তা নয় সেটা বোঝার জন্য। একটি বিশ্বসমাজ গড়বার আকাঙ্ক্ষা পুঁজিতান্ত্রিক গোলকায়নের যুগে আরও তীব্র হবে। ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্র নিয়ে হেগেল যে সকল জিজ্ঞাসার জন্ম দিয়েছিলেন শেষাবধি এঙ্গেলস প্রভাবিত কমিউনিস্ট আন্দোলন বাস্তবে তার মীমাংসা করতে পারে নি। সেই ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট ভাবে প্রচলিত কমিউনিজম কোথায় ব্যর্থ তাকে শনাক্ত করাই এখনকার জরুরী কাজ। অন্যদিকে জর্মান ভাবাদর্শের পর্যালোচনা এবং মার্কসকে নতুন ভাবে বোঝার মধ্য দিয়ে নতুন ভাবে মানুষ এবং মানুষের জগত এবং ইতিহাস নিয়ে ভাববার তাগিদও বাড়বে।

‘ইতিহাসের বস্তুবাদী দৃষ্টিভঙ্গী’ কথাটি এঙ্গেলস যেভাবে ব্যবহার করেছেন তা এখন পুরাপুরি পরিহার করা আমরা ঠিক মনে করি না। এই ধারণার ঐতিহাসিক তাৎপর্য অস্বীকার করবার জো নাই। চিন্তা ও তৎপরতার ইতিহাসের একটি পর্যায়ে চিন্তার ভূত বা ভুতুড়ে চিন্তার অধীনস্থতা থেকে মানুষকে মুক্ত করা, এবং জাগতিক করে তোলার কর্তব্য থেকেই ‘ভাববাদ’-এর বিপরীতে ‘বস্তুবাদী’ চিন্তার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছিলো। এখন ভাববাদ/বস্তুবাদ-এর বাইনারি নতুন বৈপ্লবিক চিন্তার জন্য বাধা হয়ে উঠেছে। তাছাড়া ইতিহাস বায়বীয় নয়, অতএব প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে ইতিহাস বোঝার দরকার আছে।

ধারণাটি পরিহার কেন ঠিক নয়? কারন শুধু চিন্তা দিয়ে চিন্তার বিচার হয় না। তদুপরি মানুষ স্রেফ ‘বস্তু’ নয়, কিন্তু ‘বস্তু’ না হলেও চিন্তা ও মতবাদ মানুষের বাস্তবিক ইতিহাস নির্ধারণ ও নির্ণয় করবার প্রভূত ক্ষমতা রাখে। ‘বস্তু’ও চিন্তারই একটি নির্মাণ, চিন্তার দ্বারা তৈয়ারি একটি ধারণা। সমাজতান্ত্রিক কিম্বা কমিউনিস্ট আন্দোলন ব্যর্থ হবার দার্শনিক কারণ এই সকল প্রাথমিক ভেদবিচারে ব্যর্থতার মধ্যে অনেকটাই নিহিত।

তারপরও হেগেলের চিন্তা ও রাজনীতি পর্যালোচনার দরকারে ইতিবাচক অর্থে ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’টিকে চিন্তার একটি সদর্থক অভিমুখ হিসাবে আমরা চিহ্নিত করতে পারি। মার্কস মানুষের ইতিহাসকে অবশ্যই বৈষয়িক জীবনের উৎপাদন ও পুনরুৎপাদনের অনিবার্য তাগিদের সঙ্গে সংযুক্ত রেখে বিচার করতে চেয়েছেন। তবে এঙ্গেলসের হাত হয়ে ধারণাটির যে সংকীর্ণ প্রয়োগ আমরা ইতিহাসে দেখেছি সে সম্পর্কে সজ্ঞান ও সতর্ক থাকার প্রতি আমামদে অধিক মনোযোগী হতে হবে। এই ধারণা মনে রাখলে এঙ্গেলস হেগেল, ফয়েরবাখ ও মার্কস কে কিভাবে বুঝেছেন সেই দিকগুলোও বুঝতে সুবিধা হয়। একই ভাবে কোথায় তিনি মার্কস থেকে আলাদা থেকে গিয়েছেন সেটাও আমরা বুঝতে পারি। সোভিয়েত কমিউনিস্ট পার্টি কিম্বা সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সরকারি ধারণা হিসাবে ‘ঐতিহাসিক বস্তুবাদ’, ‘দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ’ একসময় গড়ে উঠেছিল সেইসব বুঝতেও ধারনাটি কাজে লাগে।

জেনে রাখা দরকার কার্ল মার্কসে ‘ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণা’ নামক কোন ধারণা নাই। ইতিহাসের বস্তুবাদী ধারণার অভিমুখ এঙ্গেলস যেভাবে বুঝেছিলেন তার সম্ভাব্য পরিণতি এখন নিছকই দর্শনের বিষয় নয়। ইতিহাস – বিশেষত কমিউনিস্ট আন্দোলনের অভিজ্ঞতা থেকেই আমরা নির্ণয় করতে পারি। তবে সুনির্দিষ্ট ভাবে মার্কসকে বিচার করবার জন্য ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ আমাদের নতুন করে পর্যালোচনার অধীনে আনা জরুরী। ‘পুঁজি’ কিম্বা ‘বাড়তি মুল্য’ ইত্যাদির পাশাপাশি ‘জর্মান ভাবাদর্শ’ এবং মার্কসের তরুণ বয়সের অন্যান্য রচনার গুরুত্ব এখানেই।

বইপত্রের হদিস

Engels, F. (1888). Ludwig Feuerbach & the End of Classical German Philosophy. London.

Karl Marx & Frederick Engels. (1972). Feuerbach: Opposition of the Materialistic and Idealisticc Outlook. Moscow: Progress Publishers.

Karl Marx, Frederick Engels. (2010). Colected Works of Marx & Engels (Volume 5). London: Lawrence Wishart.

Karl Marx, Frederick Engels. (1976). The German Ideilogy (Full). Moscow: Progress Publishers.

Marx, K. (1977). CAPITAL:A Critique of Political Economy, tr. Ben Fowkes. Intro. Ernest Mandel. New York: Vintage Books.

Terrel Carver, Daniel Blank. (2014). A Political History of the Editions of Marx and Engel's "German Ideology". New York: Plgrave McMillan.

Terrel Carver, Daniel Blank. (2014b). Marx and Engel's "German Ideology" Manuscripts: Presentation and Analysis of the "Feuerbach chapter". New York: Palgrave McMillan.

 

 

 


ছাপবার জন্য এখানে ক্লিক করুন



৫০০০ বর্ণের অধিক মন্তব্যে ব্যবহার করবেন না।