চিন্তা


চিন্তা ও তৎপরতার পত্রিকা

আমার চরকা ভাঙা টেকো আড়ানে

আমার চরকা ভাঙা টেকো আড়ানে
আমি টিপে সোজা করব কত
আর তো প্রাণে বাঁচিনে ।।

একটি আঁটি আরকটি খসে
বেতো চরকা লয়ে যাব কোন দেশে
আর কতকাল জ্বলবো এ হালে
এ বেতো চরকার গুণে ।।

কিবা ছুতোর ব্যাটার গুণ পরিপাটি
ষোল কলে ঘুরায় টেকোটি
তার একটি কলে বিকল হলে
সারতে পারে কোনজনে ।।

সামান্য কাঠ পাটের চরকা নয়
যে খসলে খুঁটো খেটে আঁটা যায়
মনবদেহ চরকা সেহ
লালন কি তার ভেদ জানে ।।

(ভোলাই শার খাতা, গান নং ১২৩৯; পৃষ্ঠা ৬৭)

 

 

(আরো পড়ূন)

কি আজব কলে রসিক বানিয়েছে কোঠা

কি আজব কলে রসিক বানিয়েছে কোঠা
(শূন্যভরে পোস্তা করে তার উপর ছাদ আঁটা) [১]

অনন্ত কুঠরি থরে থর
চারদিকে আয়নামহল তার
হাওয়ার পথ নাই রূপ দেখা দায়
      মণিমাণিক্যের ছটা।।

যেদিন যাবে রসিক চাঁদ সরে
হাওয়ার প্রবেশ হবে সেই ঘরে
নিভাইবে রসের বাতি
      ভেসে যাবে সব ঘটা।।

দেখিতে বাসনা যার হয়
দিলদরিয়ায় ডুবলে দেখা যায়
লালন বলে কল ছুটিলে
      কারে আর দেখবি কেঠা।।

( শুদ্ধ পাঠ নির্ণয়: ৪ এপ্রিল ২০১৮)
(শাহ, ২০০৯, পৃষ্ঠা ৪৯)

 

 

(আরো পড়ূন)