বাংলাদেশের রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে?


অনেকে প্রায়ই প্রশ্ন করেন বাংলাদেশের রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে? কিন্তু প্রশ্ন হওয়া উচিত আমরা একে কোন দিকে নিতে চাই?

বাংলাদেশের জাতীয় রাজনীতিতে শ্রমিক ও কৃষকদের উপস্থিতি না থাকলেও নিরাপদ সড়ক আন্দোলন ও ছাত্র অধিকার পরিষদের অধিকাংশ সংগ্রামী তরুণেরা গরিব কৃষক ও শ্রমজীবী মানুষের সন্তান। আন্দোলনে শ্রেণিগত ছাপ স্পষ্ট না হলেও এটা পরিষ্কার সড়ক দুর্ঘটনায় যারা মরে কিম্বা পঙ্গু হয়ে দুঃসহ জীবন কাটায় তাদের অধিকাংশই 'মফিজ' -- অর্থাৎ তাদের পরিচয় বা নাম থাকে না। এছাড়া আছে মেহনতি ও নিম্নবিত্তের মানুষ -- যাদের খবর কেউ রাখে না। তাহলে আমাদের উচিত হচ্ছে যে কোন আন্দোলনে অন্তর্নিহিত শ্রেণি প্রশ্নটা ধরতে পারা এবং অন্যদের বোঝানো। দিনশেষে লড়াইটা হচ্ছে অল্প কয়েকটি মাফিয়া পরিবার এবং তাদের তৈরি ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে। সন্ত্রাস ও সহিংসতা একচেটিয়া ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রের হাতেই কুক্ষিগত।

দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলন হচ্ছে কোটা সংস্কার আন্দোলন এবং তার মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠা ছাত্র অধিকার পরিষদ। শ্রেণির দিক থেকে মিশ্র কিন্তু গরিব, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত ছাত্রছাত্রীদেরকেই এই আন্দোলন প্রতিনিধিত্ব করে। বাংলাদেশে আগামি দিনের রাজনীতিতে সম্ভাব্য যে সকল ধারার ভেতর থেকে নতুন রাজনৈতিক সম্ভাবনা বিকাশের সম্ভাবনা রয়েছে কোটা সংস্কার আন্দোলনে তার সর্বাগ্রে। কিন্তু কি তার রূপ দাঁড়াবে তা আগাম বলা সম্ভব না। বিভিন্ন সময়ে তাদের দোদুল্যমানতা এবং হোঁচট খাওয়াও আমরা দেখেছি। শ্রেণিগতভাবে মিশ্র হওয়ার কারণে দোদুল্যমানতা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু এটা পরিষ্কার এই আন্দোলন ধনি বা উচ্চবিত্তদের আন্দোলন নয় এবং ফ্যাসিস্ট শক্তির সঙ্গে এই আন্দোলনের দ্বন্দ্ব বাস্তব। এই আন্দোলনের যে দিকটি সম্প্রতি বিপুল ভাবে জনসমর্থন লাভ করেছে সেটা হোল বাংলাদেশের নরেন্দ্র মোদীর আগমনের বিরোধিতা করা। হেফাজতে ইসলামের তরুণদেরও যা অনুপ্রাণিত করেছিল। বাম ডান নির্বিশেষে ফ্যাসিস্ট শক্তি ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়বার রণধ্বপণি এই প্রথম আমরা মোদী বিরোধী আন্দোলনে দেখলাম। সম্প্রতি ছাত্র পধিকার পরিষদের নেতাকর্মীদের বিপুল ধড়পাকড়ের কারণ এটাই। যার ধারাবাহিকতায় সম্ভাবনাময় তরুণ রাজনৈতিক কর্মী আকরম হোসেন গ্রেফতার হয়েছে। এর আগে আখতার হোসেন সহ বহু কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এই আন্দোলনের তরুন নেতৃবৃন্দের কাছে একটি সত্য আগের চেয়েও অনেক স্পষ্ট। সেটা হোল পুঁজিতান্ত্রিক গোলকায়নের যুগে লিবারেল ও নির্বাচনসর্বস্ব ফাঁপা রাজনীতির কোন ভবিষ্যৎ নাই। সেটা এক মাফিয়া গ্রুপকে সরিয়ে আরেক মাফিয়া গ্রুপকে ক্ষমতাসীন করার শামিল । মাফিয়াদের টাকায় নির্বাচন করে কোন তরুণ নেতা একালে আর জাতীয় নেতা হতে পারবে না। মাফিয়াতন্ত্র ও ফ্যাসিস্ট ব্যবস্থা থেকেও জনগণের মুক্তি মিলবে না। মাফিয়া পরিবারের দাসত্ব বরণ করবারও কোন অর্থ হয় না। বাস্তবতা হচ্ছে বাংলাদেশে নির্বাচন করতে হলে টাকা লাগবেই। ফলে নির্বাচন নয়, এখনকার রাজনীতি হচ্ছে রাষ্ট্রকে নতুন ভাবে গড়া। কিন্তু সেখানেও প্রশ্ন আছে। কারণ পুঁজিতান্ত্রিক গোলকায়নের যুগে স্বাধীন সার্বভৌম ওয়েস্টফিলিয়ান রাষ্ট্র অবাস্তব বা আকাশকুসুম হয়ে গিয়েছে। কোভিড-১৯ আমাদের দেখিয়ে দিচ্ছে কিভাবে রাষ্ট্রের জায়গায় স্থান করে নিচ্ছে অল্প কয়েকটি বহুজাতিক কোম্পানি, যারা সারাবিশ্বকে সমরাস্ত্র, টেকনলজি, নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারির জাল দিয়ে আষ্টে পৃষ্ঠে বেঁধে ফেলেছে। কিন্তু বিদ্যমান ফ্যাসিস্ট শক্তি পরাজয় এবং ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রব্যবস্থা দ্রুত বদল না করলে আসন্ন বিপর্যয় আমরা এড়াতে পারব না।

রাষ্ট্র মেরামত করবার যে কথা নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে উঠেছিল, বাংলাদেশের রাজনীতি সেই দিক থেকে এক কদম এগিয়ে গিয়েছে বলা যায়। ছাত্র অধিকার পরিষদ নিস্ফল ও গণবিরোধী নির্বাচনসর্বস্ব রাজনীতির ফাঁদ এড়িয়ে যদি গণ আন্দোলনকে তার যৌক্তিক পরিণতির দিকে নিতে পারে তাহলে বাংলাদেশ একাত্তরের মতো বিশ্বে আবার নতুন ইতিহাস সৃষ্টির পূর্ণ সম্ভাবনা নিয়ে হাজির হয়েছে।

হেফাজতে ইসলামের ডাকে চিড়াগুড় বেঁধে যারা শত শত মাইল হেঁটে ঢাকায় এসেছিল তারা গরিব কৃষক কিম্বা মেহনতি মানুষেরই সন্তান। এটা সত্য যে হেফাজতের দাবি কিম্বা নেতৃত্বের চরিত্রের মধ্যে আমরা এই শ্রেণীর আর্থ-সামাজিক স্বার্থ কিম্বা রাজনৈতিক চেতনার সরাসরি প্রতিফলন দেখি নি। না দেখার কারন কিছুটা বাস্তবতা এবং কিছুটা আমাদের কাণ্ডজ্ঞানের অভাব। সমাজে এই কাণ্ডজ্ঞানটুকু এখনও তৈরি হয় নি যে খুঁড়িয়ে চলা পুঁজিতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রের অধীনে সর্বহারা শ্রেণীর কাছে আত্মিক ও মানসিক আশ্রয় তার ধর্ম, বিশেষত তার নবী। রাসুলের উম্মত হবার কারণে সর্বহারা ন্যায়বিচার পাবার আশায় বাঁচে কিম্বা বেঁচে থাকবার চেষ্টা করে। কিন্তু বাংলাদেশের নাস্তিককুল সেই নবীকেও অশ্লীল ভাবে অপমান করে, নাস্তিকতার নামে গরিব ও সর্বহারার শেষ এবং একমাত্র আশ্রয় নবীকেও তাদের কাছ থেকে কেড়ে নিতে চায়। গণমানুষের মধ্যে তার রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়া আমরা ২০১৩ সালে দেখেছি।

এসবের পাশাপাশি চলেছে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলন, যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সে আন্দোলনে শহরের এলিট ও মধ্যবিত্ত নারীদের দাপট আমরা দেখি। অন্যদিকে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনকে এনজিওদের প্রজেক্ট বা এক্টিভিটিতে পরিণত করার কারণে তার কোন নগদ ইতিবাচক ফল আমরা পাই নি। ফলে পুঁজিতান্ত্রিক-পুরুষতন্ত্রের (Capitalist Patriarchy) বিরুদ্ধে নারীর লড়াইয়ের তাৎপর্য বাংলাদেশের গরিব ও মেহনতি জনগণ এখনও পরিষ্কার বোঝে নি। কিন্তু সেখানেও তরুণ নারী নেতৃত্বের পদচারণা আমরা দেখছি যাদের নিয়ে বাংলাদেশ একদিন গর্ব বোধ করবে। জাতীয় রাজনীতির পুরা ছকের মধ্যে পুরুষতান্ত্রিক সম্পর্ক, নিপীড়ন ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে নারীর লড়াই আগামি দিনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তাহলে আমাদের আশু কর্তব্য ও কাজ কি? বিচ্ছিন্ন ও বিভিন্ন গণ আন্দোলনকে একটি সুতায় বাঁধতে পারার সামর্থ অর্জন। যেন আন্দোলন যেখানে যেভাবেই গড়ে উঠুক দিন শেষে লড়াই একটাই: অল্প কয়েকটি মাফিয়া পরিবারের গড়ে তোলা ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে মজলুম জনগণের লড়াই।

এটাই সদর রাস্তা। আন্দোলনকে কোন গলিঘুঁজিতে ঢুকে পড়তে বা শর্টকাট মারতে দেবেন না।

 


ছাপবার জন্য এখানে ক্লিক করুন



৫০০০ বর্ণের অধিক মন্তব্যে ব্যবহার করবেন না।