চিন্তা


চিন্তা ও তৎপরতার পত্রিকা

মাহমুদুর রহমান ও ‘বাঙালি মুসলমান’

মাহমুদুর রহমানকে ভালবাসেন এমন মানুষের অভাব নাই। তেমনি, তাঁকে ঘোরতর অপছন্দ করেন এমন লোকও আছেন। এর মধ্য দিয়ে একটি বিভক্ত ও বিভাজিত সমাজের ছবি আমাদের সামনে হাজির  হয় যারা স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের নাগরিক হিশাবে নিজেদের সামষ্টিক স্বার্থের জায়গা থেকে কোন রাজনৈতিক প্রশ্নে বাস্তবোচিত অবস্থান নিতে অক্ষম। সমাজ ও রাজনীতিতে সক্রিয় যে কোন ব্যক্তি সম্পর্কে সমাজে নানান মূল্যায়ন থাকতেই পারে। কিন্তু মাহমুদুর রহমান যেভাবে গুণ্ডামি, হামলা, মামলা এবং অবিশ্বাস্য অবিচারের মুখোমুখি হয়েছেন তার তুলনা নাই। কুষ্টিয়ার আদালতে তিনি প্রকাশ্যে ক্যামেরার সামনেই পুলিশের উপস্থিতিতে গুণ্ডামির শিকার হয়েছেন, মারাত্মক জখম নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এই ঘটনা, বলা বাহুল্ (আরো পড়ূন)

মোদী, আসাম ও মমতা ব্যানার্জি

'বঙ্গাল খেদা' থেকে 'মুসলমান বিতাড়ন'

ন্যাশনাল রেজিস্ট্রেশন অব সিটিজেন ১৯৫১ আসামে একটি আইনী হাতিয়ার; যার দ্বারা কারা আসামের নাগরিক তা নির্ণয় করা হচ্ছে। নাগরিকপঞ্জির ভিত্তিতে কে আসামে থাকত পারবে আর কে পারবে না সেটাই নির্ণয় করা হচ্ছে। যারা নিবন্ধিত হতে ব্যর্থ হবে তাদের বিতাড়ন করা হবে। এই নিবন্ধন শুধু আসামেই, অন্য কোন রাজ্যে নয়। রাষ্ট্রের আইন মানুষের জন্মগত অধিকারও হরণ করতে পারে এবং অনায়াসে লক্ষ লক্ষ লোককে 'রাষ্ট্রহীন' বানিয়ে আইনী সুরক্ষা ও অধিকারের বাইরে ছুঁড়ে ফেলতে পারে। আসামের আইনী পরীক্ষা জাতিবাদ ও আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার ব্যারাম, পুরা দক্ষিণ এশিয়ায় উত্তাপ ছড়িয়ে এই অসুখ নিজেকে (আরো পড়ূন)

কঠিন সত্য হোল চুক্তির বাস্তবতা নেই

‘সাবমেরিন কেনা’ ব্যাপারটা আমাদের মিডিয়ায় আস্তে আস্তে যত পেছনে চলে যাচ্ছে, ‘ডিফেন্স প্যাক্ট’ ব্যাপারটা ততই ভাসুরের নাম নেয়ার মতো আকার-ইঙ্গিত হয়ে থাকছে না, ক্রমশ স্পষ্ট হতে শুরু করেছে।

এই বিচারে পয়লা এপ্রিল ছিল ‘ডিফেন্স প্যাক্ট’-এর পক্ষে বড় ও প্রকাশ্য উচ্চারণের দিন। সংবাদ সংস্থা বাসস জানাচ্ছে, সেদিন ‘ইনস্টিটিউট অব কনফ্লিক্ট ল অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (আইক্ল্যাডস) আয়োজনে রাজধানীতে গোলটেবিল বৈঠক হয়েছে। সেখানে আলোচনার শুরুতে ধারণাপত্র হাজির করেন সংগঠনটির নির্বাহী পরিচালক মেজর জেনার (আরো পড়ূন)

‘গো ব্যাক, ইন্ডিয়া’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার আসার খবর পেয়ে তরুণ ছাত্র ছাত্রীরা তৎক্ষণাৎ একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়। সেটা হোল শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ প্রদর্শন। সেই তাৎক্ষণিক ও স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভের একটি ভিডিও তাঁরা ইন্টারনেটে প্রচার করেন। বলাবাহুল্য, এই ভিডিওটি বিপুল ভাবে ছড়িয়ে পড়ে। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরুদ্ধে যে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ চলছে এই স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভ একদিকে তারই অংশ, কিন্তু অন্যদিকে তার নিজস্ব তাৎপর্য রয়েছে। প্রথমত এই বিক্ষোভ সুনির্দিষ্ট ভাবে দিল্লীর আগ্রাসী ও ঔপনিবেশিক নীতির বিরুদ্ধে। বিক্ষোভের ভিডিওটি জনপ্রিয় হবার প্রধান কারন হচ্ছে দুটো স্বতঃস্ফূর্ত শ্লোগান: ‘গো ব্যাক, ইন্ডিয়া’ এবং ‘গো ব্যাক, এনটিপিসি&rsq (আরো পড়ূন)

মরণবাঁধ ফারাক্কা ও ভাসানীর রবুবিয়াত

খুব নিঃশব্দেই ষোল মে চলে গেল। তারপরও ফারাক্কা লং মার্চ উদযাপন কমিটিকে অশেষ ধন্যবাদ জানাতে হয়। তাঁরা দিনটি বিস্মৃত হতে দেন নি। ষোলই মে তারিখে তারা রাজশাহীতে এক বিশাল গণ জমায়েতের আয়োজন করেছেন। আমার সৌভাগ্য হয়েছে সেখানে আরও অনেকের সঙ্গে অংশ গ্রহণ করার। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী তাঁর অসুস্থ শরীরে ছুটে এসেছিলেন। এসেছিলেন ড. এস আই খান, প্রকৌশলী এম ইনামুল হক, সৈয়দ ইরফানুল বারী, হাসনাত কাইয়ুম, সাংবাদিক ও সম্পাদক মোস্তফা কামাল মজুমদার ও আরো অনেকে। রাজশাহীর স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের সঙ্গ পাওয়া সৌভাগ্য বটে। ধন্যবাদ মাহবুব সিদ্দিকী ও এডভোকেট মো. এনামুল হক কে অনেক ধন্যবাদ। তাঁরা বারবার তাগাদা দিয়ে আমার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন।

অবাক লাগে। যেখানে (আরো পড়ূন)

তৃণমূল না বামফ্রন্ট: পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন

আবার এক ঝলকে ভারতের কিছু রাজ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। ভারতের প্রাদেশিক সরকারের নির্বাচনকে রাজ্যের (রাজ্যসভা নয়) নির্বাচন বা বিধানসভা নির্বাচন বলা হয়। আগামী ৪ এপ্রিল থেকে এই ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতের চার রাজ্য ও একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এভাবে মোট পাঁচ বিধানসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে ভারতের নির্বাচন কমিশন। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার নসীম জইদি জানিয়েছেন, আসামে ২ দফা এবং কেরালা, তামিলনাডু ও পণ্ডিচেরিতে এক দফা করে ভোট নেয়া হলেও পশ্চিমবঙ্গে তা নেয়া হবে ৬ দফায়। এমনকি দিনের হিসাবে সাত দফায় ভোট হবে পশ্চিমবঙ্গে। ফলে প্রায় এক মাস ধরে চলবে এই ভোট পর্ব। পশ্চিমবঙ্গে ২৯৪টি আসনে মোট ৭৭ হাজার ২৪৭টি ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে ভোট নেয়া হ (আরো পড়ূন)

২. নেপালি মাওবাদ ও গণরাজনৈতিক পরিসর নির্মানের চ্যালেঞ্জ

নেপালে রাজতন্ত্রের পতন ও উৎখাতের ঘটনা ২০০৬ সালের এপ্রিল মাস থেকে শুরু। প্রথম চোটে রাষ্ট্রের  সেনাবাহিনী ও পুলিশকে রাজার অধীনস্থতা ও নির্দেশে পরিচালিত হবার আইন বাতিল করে তাদেরকে জাতীয় সংসদ, অর্থাৎ জনগণের অধীনে আনা হয়। এটা ছিল এর আগে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে চলা ইউনাইটেড কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল (UCPN) বা যারা পপুলারলি মাওবাদী (Maoist) বলে পরিচিত তাদের সশস্ত্র রাজনৈতিক সংগ্রামের ফসল।

নেপালের মাওবাদীরা  ১৯৯৬ সালে ৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে নেপালের তৎকালীন সরকারের কাছে ৪০ দফা দাবীনামা পেশ করে। সরকারকে তারা জানিয়েছিল, যদি এই দাবি মেনে না নেওয়া হয়, অর্থাৎ  আগামি দুসপ্তাহের মধ্যে  দাবি না মেনে নেবার  ইঙ্গিত দেখলে  সেক্ষেত্র (আরো পড়ূন)

১. ল্যাণ্ড-লকড নেপালঃ অতীত ও বর্তমানের ঔপনিবেশিক ধারাবাহিকতা

নেপালি জনগণের নতুন গঠতন্ত্র প্রণয়ন এবং গঠনতান্ত্রিক সভায় তা অনুমোদন ও গ্রহণ নেপালের প্রতি বাংলাদেশে আগ্রহ তৈরি হয়েছে। নেপালের জনগণ সম্পর্কে জানা এবং বোঝা বাংলাদেশের জন্য জরুরী। লেখা কোথা থেকে শুরু করতে হবে সে এক জটিল বিষয়। নেপাল প্রসঙ্গের ডাইমেনশন অনেক। অনেক দিক থেকে প্রসঙ্গ তুলে কথা বলতে হবে। আবার সব মিলিয়ে এক সামগ্রিক অর্থপুর্ণ চিত্র সাজিয়ে তোলা দরকার। কোন বিষয়ের পরে কোন বিষয় কতোটুকু আসবে সেটাও গুরুত্বপুর্ণ। সেসব নিয়ে তথ্য জোগাড় করা, চিন্তাভাবনা ও সিদ্ধান্তে আসা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। সর্বোপরি কিভাবে আনলে তা সহজে বাংলাদেশের পাঠকের বোধগম্যতায় আনা যাবে সেই বিষয়েও ভাবনার দরকার আছে। নেপাল নিয়ে বিভিন্ন বিষয় ধরে ধরে আলোচনা এখানে আলাদা আলাদা (আরো পড়ূন)

অভিনন্দন নেপাল

কিছুদিন আগে সেপ্টেম্বরের ২০ তারিখে নেপালের প্রেসিডেন্ট রাম বরণ যাদব একটি ঘোষণা দিয়েছিলেন যার তাৎপর্য অসামান্য। তিনি জানিয়েছেন গণপরিষদে নেপালের দুই কোটি ৮০ লাখ মানুষের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা নেপালে নতুন গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করেছেন এবং রাষ্ট্র গঠন পরিষদ (Constituting Assembly) বা গণপরিষদ ৫৯৮ গঠনতন্ত্র প্রণেতার মধ্যে ৫০৭ জনের সম্মতির মধ্য দিয়ে নতুন নেপালি গঠনতন্ত্র গ্রহণ করেছেন।

এই গঠনতন্ত্র প্রণয়ন একদিনে হয় নি। বাংলাদেশের মতো নেপালি জনগণ কোন উকিল মোক্তার দিয়ে তাদের সংবিধান মুসাবিদা করেন নি, কোন একটি রাজনৈতিক দল তাদের দলের দলীয় কর্মসূচি পুরা জনগোষ্ঠির ওপর চাপিয়ে দেয় নি। রাষ্ট্র গঠনের নৈতিক বা আদর্শগত ভিত্তি নিয়ে সমাজের বিভিন্ন স্তরে তীব্র (আরো পড়ূন)

মোদির বাংলাদেশ নীতি: প্রণববাবুর আলখাল্লা গায়ে সফর

মোদির সফর শেষ হয়েছে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে। মোদি নিজে আগাম অনুমান করে বলেছিলেন তাঁর ফেরত যাবার পরে এই সফর নিয়ে চর্চা শুরু হবে। তা তো অবশ্যই হবে, হচ্ছেও। এগুলোর সার কথা হচ্ছ্‌ দেনা পাওনার দিক থেকে। “হিসাব কিতাবে মোদির দিকেই পাল্লাই ভারি”-- এই সফর শেষে এটাই আমরা শুনছি। এটা না হবার কোন কারণ নাই। সাত তারিখ দিন শেষে রাত বারোটায় (আইনত আট তারিখের শুরুতে )সংবাদ পর্যালোচনায় চ্যানেল আই টিভিতে এসেছিলেন ভারতের দৈনিক টেলিগ্রাফ পত্রিকার এক বাঙলি সাংবাদিক, দেবদ্বীপ পুরোহিত। তিনিও বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করছিলেন বাংলাদেশ সবকিছুই দিচ্ছে, এটা একপক্ষীয় লেগেছে তাঁর কাছেও। তিনি বলছিলেন বাণিজ্যিক স্বার্থের দিক থেকে কিছু দেয়া আর বিনিময়ে কিছু পাও (আরো পড়ূন)

মোদি বাংলাদেশে আসছেন, তাতে কী!

এক এগারো ও দিল্লী

বাংলাদেশ ভারতের কাছে কী? মুঠোয় থাকা খেলনা? বিড়াল যেমন ইঁদুর নিয়ে খেলে সেই রকম কোন তুলতুলে খেলনা ইদুর? মানে ঠিক প্রাণহীন প্লাস্টিকের খেলনা নয়। বিড়ালের সামনে ইঁদুরের প্রাণে নিয়ে দাঁড়ানো খেলা? তাই কী?

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বিজেপির নরেন্দ্র দামোদর মোদি বাংলাদেশ সফরে আসছেন আগামি ৬-৭ জুন ২০১৫; তারিখটা এখন সরকারিভাবেও নিশ্চিত করা হয়েছে। কোন পরিপ্রেক্ষিত থেকে এই সফরকে আমরা দেখব সেই তালিকা অনেক লম্বা হবে। কোন একদিক থেকে শুরু করা যাক।

এক এগারোর এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলের মাইনাস টু ফর্মুলার কথা সকলে শুনেছি। দুই দলের দুই নেত্রীকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করা (আরো পড়ূন)

জয়শঙ্করের সফর

দুটো ইস্যু

বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংকট কোনদিকে সে অভিমুখের পরের স্তর শুরু হতে যাচ্ছে আগামি দুই মার্চ। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুব্রাহ্মনিয়াম জয়শঙ্কর আগামি দুই মার্চ একদিনের বাংলাদেশ সফরে আসছেন। কুটনৈতিক পাড়ার জোর অনুমানের ওপর তৈরি খবর হল জয়শঙ্কর যা বয়ে আনছেন তা কেবল ভারতের কথা নয় বরং তা একই সাথে আমেরিকা ও ইউরোপের সাথে ভারতের অবস্থান মিলিয়ে সমন্বিত অবস্থান। সে অবস্থানেরই বাহক তিনি। এর মানে হল, জয়শঙ্করের সফরটা ভারত-বাংলাদেশের রুটিন সফর বা অমীমাংসিত ইস্যু নিয়ে কোন আলোচনা নয়। বরং উদ্দেশ্য হচ্ছে অমীমাংসিত ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে আসার ছলে সাইড টক হিসাবে বর্তমান রাজনৈতিক সংকট সম্পর্কে পশ্চি (আরো পড়ূন)

মমতা ভাসল পানিতে ইলিশে, বাঙালির বেগুন নাই

পশ্চিম বঙ্গের মূখ্য মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী বাংলাদেশে এসে ঘুরে গেছেন। তাঁর ৪০ জনের বেশি সফর সঙ্গীর মধ্যে ছিলেন কবি সুবোধ সরকার,চলচ্চিত্র নির্মাতা গৌতম ঘোষ ও ব্রাত্য বসু,অভিনেত্রী মুনমুন সেন,অভিনেতা প্রসেনজিৎ,দীপক অধিকারী (দেব)ও অরিন্দম শীল,কণ্ঠশিল্পী নচিকেতা ঘোষ ও ইন্দ্রনীল সেন,কবি কাজী নজরুল ইসলামের পুত্রবধূ কল্যাণী কাজী। এ ছাড়া ছিলেন শিল্পপতি হর্ষ নেওটিয়া ও সঞ্জীব গোয়েঙ্কা এবং একদল সাংবাদিক। ভারতীয় সাংবাদিকরা এই সফর নিয়ে কি লিখছেন আমি সে প্রসঙ্গে যাব না। বাংলাদেশের পত্র-পত্রিকায় যা উঠেছে এবং টিভি চ্যানেল যেভাবে কভার করার জন্যে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে তাতে মনে হয়েছে এবার সরকারের একুশে ফেব্রুয়ারির কর্মসূচিটাই মমতা-কেন্দ্রিক হয়ে গেছে। সারাদিন মমতা (আরো পড়ূন)

মমতার বাংলাদেশ সফর ও প্রত্যাশা

পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ঢাকা সফরে এসেছেন। এমন সময়ে তার আসা যখন আমরা বিরাট রাজনৈতিক সংকট, অস্থিরতা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি। এই সংকটে ভারতের অবস্থান সম্পর্কে জানতে আমরা আগ্রহী, বিশেষত দিল্লি আর কলকাতার অবস্থানের ঐক্য ও পার্থক্য আমরা বুঝতে চাই। বলা বাহুল্য, এখানে ভুল করার বিশেষ কোন অবকাশ নাই যে মমতা একটা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কোন প্রতিনিধি নন, প্রতিনিধিত্ব তিনি করছেনও না, করার সুযোগও নাই। তাহলে মমতার এই সফরের প্রয়োজন দেখা দিল কেন?

এর দুটো দিক আছে। এক, হাসিনা সরকার কেন মমতার সফরে আগ্রহ দেখালেন? আর দুই, মমতা এই সফর কেন প্রয়োজন মনে করলেন? এই দুটো বিষয় নিয়ে আমরা এখানে কথা তুলব।

বাংলাদেশ একটি স্বাধীন (আরো পড়ূন)

বাংলাদেশে গণতন্ত্রঃ দিল্লি-ওয়াশিংটনের নতুন সম্পর্কের আলোকে

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক সিনিয়র পরিচালক ফিল রেইনার (Phil Reiner) গত ৩ জানুয়ারি এক প্রেস কনফারেন্স আয়োজন করেছিলেন। বিষয় ছিল সদ্য সমাপ্ত ওবামার ভারত সফর সম্পর্কে প্রেসকে অবহিত করা। ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস ২৬ জানুয়ারি। এ বছরের প্রজাতন্ত্র দিবস অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসাবে ওবামা ২৫-২৭ জানুয়ারি ভারত সফরে এসেছিলেন। ফিল রেইনার ওবামার ভারত সফরে সঙ্গী ছিলেন। স্বভাবতই ঐ প্রেস কনফারেন্স ছিল মূলত ভারত সফরে ওবামার তাৎপর্য বিশেষত অর্জনগুলো তুলে ধরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেইটের ওয়েবসাইটে রেইনারের প্রেস কনফারেন্সটিকে সেই ভাবেই পেশ করা হয় (আরো পড়ূন)

মোদীর ভারত এবং বিশ্বে শক্তির ভারসাম্যে বদল (২)

পরাশক্তি হওয়ার নির্ণায়ক

কোন রাষ্ট্রের পরাশক্তি (সুপার পাওয়ার অথবা গ্লোবাল পাওয়ার) খেতাব পাবার নির্ণায়ক কি? অনেকের মনে হতে পারে পারমাণবিক বোমা বানানোর ক্ষমতা ও সে বোমা সংগ্রহে থাকলেই তাকে বোধহয় পরাশক্তি বলা যায়। এই ধারণার ভিত্তি নাই। তবু কারও কারও এমন ধারণা তৈরি হবার পিছনে কারণটা হল, কেবল পারমাণবিক অস্ত্রের সক্ষমতা, যা নিঃসন্দেহে সামরিক সক্ষমতার একটা মাত্রা ও সেই মাত্রার প্রকাশ মাত্র, তাকে সামগ্রিক সামরিক সক্ষমতা বলে ভুল করা। মনে রাখতে হবে ভুলটা আদতে কেবল পারমাণবিক অস্ত্রের সক্ষমতাকে সামগ্রিক সামরিক সক্ষমতা বলে বুঝা। আবার পরাশক্তি ধারণা কেবল সামগ্রিক সামরিক সক্ষমতার প্রশ্ন নয়, সেই (আরো পড়ূন)

মোদির ভারত এবং বিশ্বে শক্তির ভারসাম্যে বদল (১)

পুঁজির গোলকায়ন দুনিয়ার অর্থব্যবস্থায় মৌলিক রূপান্তর ঘটিয়েছে ও ঘটাচ্ছে এ কথা সবসময়ই বলা হচ্ছে। কথাটা সত্যও বটে। প্রশ্ন হচ্ছে, বাংলাদেশের দিক থেকে এর তাৎপর্য উপলব্ধির জায়গাগুলো বুঝব কী করে? এই প্রশ্ন মনে রেখে নরেন্দ্র মোদির ভারত নিয়ে এই লেখা। দুনিয়াব্যাপী বিস্তৃত পুঁজিতান্ত্রিক অর্থব্যবস্থায় ভারকেন্দ্র এশিয়া – বারাক ওবামার ভাষায় এশিয়ার থিয়েটার বা নবোদ্ভূত এশিয়ার রঙ্গমঞ্চ। এই থিয়েটারে বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে যারা জয়ী হবে তারাই বিশ্বের নেতৃত্বের আসনে সমাসীন হবে। এই পরিস্থিতিতে আঞ্চলিক শক্তি হিসাবে ভারতের পরিবর্তনের অভিমুখগুলো ঠিক ঠিক বুঝতে হবে বাংলাদেশের কথা ভেবে। একই সঙ্গে নতুন বাস্তবতায় বাংলাদেশের  চিন, ভারত ও আমেরিকা নীতি কি হতে (আরো পড়ূন)

সুশীল রাজনীতি ও ভারতের তিন চাহিদা

সুশীল রাজনীতি গণতন্ত্রের দুষমন

নির্বাচন মানে গণতন্ত্র এমন একটা ধারণা বাংলাদেশের সুশীলগণ জোরেশোরে প্রচার করে থাকে। তারা ধরে নেয় বাংলাদেশে গণতন্ত্র অলরেডি কায়েম আছে, এখন কাজ শুধু নির্বাচন করা। অথচ নির্বাচনকে যদি গণতান্ত্রিক চর্চা হতে হয় তাহলে তার আগে তো একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠিত থাকা দরকার। কিন্তু সুশীলদের কোলাহল নিরন্তর এই ধারণাই কায়েম করে যে রাষ্ট্রকে আগে থেকেই গণতান্ত্রিক চরিত্র নিয়ে গঠিত থাকার দরকার নাই; গণতান্ত্রিক বিধিবিধান বা আইনকানুন -- এমনকি নিদেনপক্ষে একটা লিবারেল কনষ্টিটিউশন --ইতাদি কোন কিছুরই দরকার নাই – নির্বাচন হলেই সেটা ‘গণতন্ত্র’। বাংলাদেশের (আরো পড়ূন)

বাংলাদেশের রাজনীতিতে আঞ্চলিক উত্তাপ

অনেকে দাবি করছেন, বাংলাদেশের রাজনীতি সংঘাতের দিকে যাচ্ছে আবার। এই দাবির পেছনে তারা বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতিকেই দায়ি করেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে সংঘাত নতুন কিছু নয়। ফলে শেখ হাসিনার সরকারের মেয়াদ শেষ হবার তারিখ যতোই ঘনিয়ে আসবে ততোই সংঘাতের সম্ভাবনা বাড়বে। কিন্তু এই সংঘাত বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও রাজনীতির জন্য অতিশয় বিপজ্জনক হয়ে ওঠার সম্ভাবনা খুব কমই ছিল। কিন্তু ভারতের আভ্যন্তরীন রাজনীতির কারণে পরিস্থিতি দ্রুত বদলে যাচ্ছে এই কথাটি বলবার জন্যই এই লেখাটি লিখছি। বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির বিষয়াদি নিয়ে লিখবার আগে আঞ্চলিক পরিপ্রেক্ষিত সম্পর্কে এই ধারণাটুকু দিয়ে শুরু করতে চাইছি।

বাংলাদেশে আগামি নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা বাড় (আরো পড়ূন)

মাশুল ছাড়াই চালু হল ট্রানজিট

কোন ধরনের ট্রানজিট ফি ছাড়াই ইনডিয়াকে ট্রানজিট সুবিধা দিতে গত ৩০ নভেম্বর প্রথম সমঝোতা স্মারকটিকে সম্মতি দিয়েছে বাংলাদেশ। এই সমঝোতার ফলে দেশটির প্রতিবেশী রাষ্ট্র ইনডিয়া কোন ধরনের ফি ছাড়াই তার পশ্চিমের মূল ভূখ- থেকে যুদ্ধবিক্ষুদ্ধ পূর্বাঞ্চলে যাওয়ার করিডোর সুবিধা পাবে বাংলাদেশের অবকাঠামো ব্যবহার করে। উল্লেখ্য, উনিশশ একাত্তরে সাবেক পাকিস্তানের সাথে স্বাধীনতা যুদ্ধে জিতে রাষ্ট্র হিশাবে বাংলাদেশের যাত্রা শুরুর পর থেকেই ইনডিয়া এমন করিডোর সুবিধা পেতে কূটনৈতিক দেন দরবার সহ নানা উপায়ে চেষ্টা করে আসছিল।

তিরিশে নভেম্বরের ওই সমঝোতার পাশাপাশি এখন অন্যান্য বড় আকারের ট্রানজিট চুক্তিগুলার আনুষ্ঠানিকতা দ্রুত শেষ করতে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনায় (আরো পড়ূন)

আঞ্চলিক: নেপালে স্থিতিশীলতা ও গণতান্ত্রিক পরিগঠন

চার বছর ধরে জমে থাকা দায় শোধ করতে হবে দ্রুত

  • সাবেক গেরিলা যোদ্ধাদের সন্তোষজনক বেসামরিক জীবনযাত্রা অনিশ্চিত
  • সেনাবাহিনীর গণতন্ত্রায়ন ও নির্বাচিত মন্ত্রীসভার অধীন করার বিষয়ে অগ্রগতি হয় নাই
  • রাষ্ট্রের চরিত্র ও কাঠামোর বিষয় এখনো অমীমাংসিত

সুরাহা করতে হবে চার বছর ধরে জমে থাকা সমস্যা

নেপালের সাংবিধানিক পরিষদ এখন সংবিধান প্রণয়নে আরো একবছর সময় পাচ্ছে--গত আটাশে মে’তে অন্তর্বর্তী সংবিধানে সংশো (আরো পড়ূন)

ইনডিয়ার পানি আগ্রাসন ও নিরাপত্তা ঝুঁকি

ফারাক্কা ব্যারেজ, স্পাই-থ্রিলার ও দক্ষিণ এশিয়ায় আশু সংঘাত

এক.

বাংলাদেশের এই জমিন তৈরি করেছে শিরা-উপশিরার মতো বয়ে যাওয়া নদ-নদী, তারা জলের সাথে বয়ে এনেছে পলি, কণা কণা পলি জমে জমে তৈরি হয়েছে আমাদের পায়ের নীচের মাটি- বদ্বীপ বাংলাদেশ। এই দেশের বিশাল সবুজে যেই প্রকৃতি ও প্রাণের সমারোহ, সেই সমস্ত আয়োজন নিশ্চিত হয় জলের বিপুল প্রবাহে। পানি ও প্রাণের এক অবিচ্ছেদ্য মানিক-জোড়। পুরো দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিবেশ ও প্রাণব্যবস্থার টিকে থাকার অলঙ্ঘনীয় শর্ত হচ্ছে জলের এমন অবাধ প্রবাহ। অথচ বাংলাদেশের বেলায় জলের এই চলাচল আটকে দিচ্ছে প্রতিবেশী রাষ্ট্র, ইনডিয়া। বাংলাদেশের মানুষ সহ সব প্রাণের অস্তিত্ব হুমকিতে ফেলে দিচ্ছে- প্রাণব্যবস্থা, প্র (আরো পড়ূন)